ঢাকা, বুধবার 02 August 2017, ১৮ শ্রাবণ ১৪২8, ৮ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সিদ্দিকুরের চোখের আলো ভাগ্যের ওপর

তোফাজ্জল হোসেন কামাল : ক‘দিন আগেও যে জোড়া চোখে সংসারের দু:খ মোচনের স্বপ্ন দেখতেন, সেই চোখ যুগল এখন নিজেই দুখী । নিজের আলো ফিরবে কিনা-এমন অনিশ্চয়তার মধ্যে সংসারে আলো ফেলবে কি দিয়ে ? যদি আলো না ফেরে তবুও বেঁচে থাকবেন সিদ্দিকুর। চোখের আলো ছাড়াই তাকে বাচঁতে হবে এমন সত্যটা জানার পরও চোখের আলো ফেরার সম্ভাবনায় অপারেশন (অস্ত্রোপচার) চান সিদ্দিকুর। সৃষ্টিকর্তার প্রতি তার অগাধ আশা। এই আশা থেকেই নির্ভরতা তার ভাগ্য বিধাতার ওপর। ভারতের চেন্নাইয়ের শঙ্কর নেত্রালয়ে বর্তমানে চিকিৎসা নিচ্ছেন পুলিশের ছোড়া টিয়ারসেলে দুই চোখ ক্ষতিগ্রস্ত তিতুমীর কলেজের মেধাবী ও দরিদ্র ছাত্র সিদ্দিকুর রহমান।

এদিকে সিদ্দিকুর রহমান দৃষ্টিশক্তি ফিরে না পেলেও সরকার তার চাকরির ব্যবস্থা করবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। গতকাল মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘চিকুনগুনিয়া ২০১৭: ঢাকা অভিজ্ঞতা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন তিনি।

চেন্নাইয়ে হতভাগ্য সিদ্দিক যেমন আছেন

ভারতের চেন্নাইয়ের শংকর নেত্রালয়ে চোখের চিকিৎসা করাতে গিয়ে হতভাগ্য সিদ্দিকুর কেমন আছেন? এমন প্রশ্ন সবার মনে। তিনি সেখানে বিষন্ন মনে সময় কাটাচ্ছেন। মনে মনে সৃষ্টিকর্তাকে যপে যপে দিন কাটাচ্ছেন। সিদ্দিকুরের এক চোখে আলো ফিরবে না বলে আগেই জানিয়েছিলেন দেশের চিকিৎসকরা। তবে অন্য চোখে আলো ফেরার আশায় ভারতের চেন্নাইয়ে নেওয়া হয়েছিল তাকে। কিন্তু সেখানের চিকিৎসকরাও জানিয়ে দিয়েছেন, তার দুই চোখেই আলো ফেরার কোনও সম্ভাবনা নেই। তারপরও চোখে অপারেশন করাতে চান সিদ্দিকুর রহমান। তার আশা, যদি কিছু ঘটে যায়, মিরাকেল বলেও একটা জিনিস আছে পৃথিবীতে। সেই মিরাকেলে যদি চোখের আলো ফেরে, তাহলে সুস্থ হয়ে পরিবারের দায়িত্ব নিতে পারবেন। চেন্নাইয়ের শংকর নেত্রালয়ের চিকিৎসক তাদেরকে জানিয়েছেন, সিদ্দিকুরের বাম চোখে দৃষ্টি ফেরার কোনও সম্ভাবনাই নেই, তার ডান চোখের সঙ্গে সঙ্গে বাম চোখও নষ্ট হয়ে গেছে। প্রথমে চিকিৎসকদের এ সিদ্ধান্ত জানার পর সিদ্দিকুর কেঁদেছিলেন। তবে তিনি ভেঙে পড়লেও পরে চোখে অপারেশন করানোর সিদ্ধান্ত নেন।

বন্ধু শেখ ফরিদকে ফোনে সিদ্দিকুর রহমান জানিয়েছেন, ‘যদি এখানে না আসতাম তাহলে কোনও কথা ছিল না। কিন্তু যখন এসেছি, তখন অপারেশনটা করেই যাই। তাতে মানসিক শান্তি থাকবে। চিকিৎসার কোনও ত্রুটি আমরা করিনি। আর এখন বিষয়টা ভাগ্যের ওপরে ছেড়ে দিয়েছি। অপারেশনটা করি, যা হবার তাই হবে। এখনতো কিছু করার নেই।’

সিদ্দিকুরের ক্ষতিগ্রস্ত দুই চোখ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর চিকিৎসক লিংগম গোপাল সোমবার দুপুরে জানান, তার চোখে আলো ফেরার কোনো আশা তারা দেখছেন না। এক ভাগ সম্ভাবনাও নেই। তবে সিদ্দিকুর চাইলে কেবল চোখে অস্ত্রোপচার করা হবে।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে সিদ্দিকুরের সহপাঠী শেখ ফরিদ বলেন, ‘আল্লাহর ওপর সিদ্দিকুরের ভরসা আছে। তিনি চাইলে সে দৃষ্টি ফিরে পাবে। আল্লাহর ওপর ভরসা রেখেই গতকাল হোটেল থেকে হাসপাতালে গেছে সিদ্দিকুর। চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শক্রমে অস্ত্রোপচারের বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে।’

পরীক্ষার রুটিন ও তারিখ ঘোষণাসহ কয়েকটি দাবিতে গত ২০ জুলাই সকাল ১০টার দিকে শাহবাগে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হওয়া নতুন সাতটি সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা। এ সময় বাকবিতন্ডার এক পর্যয়ে পুলিশ শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিচার্জ করে। এক পর্যায়ে পুলিশের ছোড়া কাঁদানে গ্যাসের শেলের আঘাতে গুরুতর আহত হন তিনি। এরপর জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। এ ঘটনায় দেশজুড়ে নিন্দা ও প্রতিবাদ শুরু হয়। পরে বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার নির্দেশে ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের তত্ত্বাবধানে জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের চিকিৎসরা তাকে চেন্নাইয়ের শংকর নেত্রালয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠান।

পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষের ওই ঘটনার পরদিন রাতে ১২০০ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় মামলা করে পুলিশ। মামলা নং- ২৬।

সিদ্দিকুরের চোখ নষ্ট হওয়ার খবরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পুলিশের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় ওঠে। অভিযোগ তদন্তে গত ২২ জুলাই রমনা বিভাগ পুলিশ পৃথক তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে।

সিদ্দিকুরের চাকরির দায়িত্ব নেবে সরকার

সিদ্দিকুর রহমান দৃষ্টিশক্তি ফিরে না পেলেও সরকার তার চাকরির ব্যবস্থা করবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। গতকাল মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘চিকুনগুনিয়া ২০১৭: ঢাকা অভিজ্ঞতা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “সিদ্দিকুরের চোখে দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে আনতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে। তার ইচ্ছা অনুযায়ী অপারেশনের ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।” “সিদ্দিকুর দৃষ্টিশক্তি ফিরে না পেলেও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে তার চাকরির ব্যবস্থা নেবে সরকার।”

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ