ঢাকা, বুধবার 02 August 2017, ১৮ শ্রাবণ ১৪২8, ৮ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মাধবদীতে কভার্ডভ্যান চালক অপহরণ মুক্তিপণ আদায় গ্রেফতার ৩

মাধবদী (নরসিংদী) সংবাদদাতা : কভার্ডভ্যান ছিনতাই ও চালককে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়ের পর মাধবদী থানা পুলিশ তিন অপহরণকারীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ২৮ জুলাই শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টায় মাধবদী থানার আসমান্দির চর গ্রামে। বাদী ও পুলিশ সূত্রে জানাগেছে গত ২৫ জুলাই মঙ্গলবার বেলা ৩টায় কভার্ডভ্যান চালক মোঃ মহিদুল ইসলাম মিঠু (৩৮) কভার্ডভ্যান ঢাকা মেট্রো-ড-১১-০৬৭৩ গাড়িটি পাঁচদোনা ইউনিয়নের আসমান্দির চর জি এইচ বি গ্লাস ফ্যাক্টরীর গ্যারেজে রেখে একই মহল্লার মন্তু মিয়ার ভাড়টিয়া বাসায় যায়। খাওয়া দাওয়া বিশ্রাম শেষে বিকাল সাড়ে ৫ টায় আসমান্দিরচর জি এইচ বি গ্লাস ফ্যাক্টরীর গ্যারেজ থেকে গাড়িটি বের করার জন্য গাড়ির কাছে পৌঁছালে হঠাৎ করে একটি সাদা রংয়ের প্রাইভেটকারে অপহরণকারী আশিক, অলু, আব্দুল্লা অজ্ঞাত ১ জন সহ ৪ জন ও অন্য দু’টি মোটর সাইকেলে আসামী মনির, বাবু, রনি ও জাকির কভার্ডভ্যান চালক মোঃ মহিদুল ইসলাম মিঠু (৩৮)কে জোর পূর্বক আশিকের প্রাইভেট কারে উঠিয়ে নিয়ে অপহরণ করে এবং কভার্ডভ্যানের চাবি ছিনিয়ে নেয়। পরে অপহরণকারীদের মধ্যে থেকে একজন সেই চাবি দিয়ে কভার্ড ভ্যানটি চালিয়ে নিয়ে যায়। অপহরণকারীরা মহিদুলকে অপহরণের পর মাধবদী থানার বিরামপুর দড়িপাড়ার আতাউল্লার ছেলে আইনুলের মাছের ফিসারীতে আটক রেখে প্রচন্ড মারধোর করে এবং মুহিদুলের মাথায় অপহরণকারী আশিক তার ব্যবহৃত পিস্তল ঠেকিয়ে মৃত্যুর ভয় দেখায়। তার সাথে থাকা একটি সামসং জে-২ মোবাইল ফোন ও নগদ ৭ হাজার টাকা জোরপূর্বক ছিনিয়ে নিয়ে বিকেল ৬ টায় ২ লাখ টাকা দাবী করে অপহৃত মুহিদুলের ব্যবহৃত মোবাইল নং ০১৬৩৮২৩৬১৮১ থেকে তার স্ত্রী বিনা খাতুনের মোবাইল নং ০১৬৮২৩৬১৮১তে ফোন করে ২লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। অন্যথায় মুহিদুলকে মেরে ফেলার হুমকি দেয় এবং মুহিদুলকে প্রচন্ড প্রহার করে তার কান্নার শব্দ শোনায়। এতে তার স্ত্রী ও ভাই জাকির মোল্লা অপহরণকারীদের সাথে কথা বলে বিকাশ নং ০১৭৫০৬৯৭০৩৪তে তিন বারে মোট ৪০ হাজার টাকা পাঠানোর পর আসামী আশিক সহ অন্যান্য আসামীরা মুহিদুলকে রাত সাড়ে ৯টার দিকে পাঁচদোনার আসমান্দির চর সাদেক মিয়ার বাড়িতে জাকিরের রুমে আটক রেখে আবারো ফোন করে ৬০ হাজার টাকা দাবী করে অন্যথায় মেরে ফেলবে বলে হুমকি দিতে থাকলে মিঠু ৪০হাজার টাকা পরে দিবে বলে কান্নাকাটি করলে কাউকে কিছু না বলা এবং শিঘ্রই তাদের নির্ধারিত স্থানে টাকা পৌছে দেয়ার প্রতিশ্রুতিতে মুহিদুল ইসলাম মিঠুকে ছেড়ে দেয়। মহিদুল বাড়িতে ফিরে আসার পর আসামীরা বাকি টাকা দেয়ার জন্য বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখাতে থাকে। এদিকে অপহরণের পর আসামীদের মারপিটের ফলে মহিদুল মানুষিক ও শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লেও ভয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে চিকিৎসা করাতে পারেনি। পরদিন মহিদুলের ভাই কৌশল করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য তাকে ভর্ত্তি করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। অপরদিকে ছিনতাই হওয়া কভার্ড ভ্যানটি আসামিদের হেফাজতে রয়ে যায়। আসামিরা আরো ৪০ হাজার টাকা দিলে গাড়িটি ফেরৎ দিবে বলে জানালে গত ২৮ জুলাই রাতে সাড়ে ৯টায় অপহৃত মহিদুলের ভাই জাকির মোল্লা পুলিশের স্বরানাপন্ন হলে মাধবদী থানার এস আই এনামুল হক, এস আই ইউসুফ আহম্মেদ ও এ এস আই আসাদ মিয়া মাধবদী থানার আসমান্দির চর গ্রামে অভিযান চালিয়ে মনিরের বাড়ির সামনের দোকানের নিকট কভার্ড ভ্যানটি দেখতে পায়। পুলিশ ও বাদীর লোকজন গাড়ির নিকট গেলে আসামিরা পুলিশ দেখে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এ সময় পুলিশ আসমান্দির চর এলাকার মোঃ মনসুর মিয়ার ছেলে আঃ কাইয়ুম প্রকাশ বাবু ও সৈকাদী গ্রামের মোঃ শহিদ মিয়ার ছেলে মোঃ রনিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় ও গাড়িটি উদ্ধার করে। গ্রেফতাকৃত দু’আসামীর স্বিকারোক্তি মোতাবেক মাধবদীর বিরামপুর (রিফুজি পাড়া) মহল্লা থেকে দ্বীন ইসলামের ছেলে অলিউল্লাহ অলুকে গ্রেফতার করে। এ ব্যাপারে মহিদুল ইসলাম মিঠুর ভাই মোঃ জাকির হোসেন মোল্লা বাদী হয়ে ৭ জন সহ আরো অজ্ঞাত নামা ২/৩ জনকে আসামী করে মাধবদী থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ৩৯, তাং-২৯/০৭/২০১৭ইং ধারা ৩৬৫/৩৮৬/৩২৩/৫০৬(।।) দ:বি: মতে। আসামীরা হলো ১। আসমান্দির চর এলাকার মোঃ মনসুর মিয়ার ছেলে আঃ কাইয়ুম প্রকাশ বাবু (২৭), ২। সৈকাদী গ্রামের মোঃ শহিদ মিয়ার ছেলে মোঃ রনি (২৬), ৩। বিরামপুর রিফুজি পাড়া) মহল্লার দ্বীন ইসলামের ছেলে অলিউল্লাহ অলু, ৪। আসমান্দির চর এলাকার আবুল হাসেম নায়েবের ছেলে মনির (২৫) ৫। একই এলাকার হাসেম মিয়ার ছেলে জাকির (২৮), ৬। নওপাড়া গ্রামের মৃত আবু সিদ্দিক মিয়ার ছেলে আশিক (৩০), ৭। কুড়েরপাড় এলাকার প্রাইভেট কারের ড্রাইভার আব্দুল্লাহ (৩৫) সর্ব থানা মাধবদী। পরে গত ৩০ জুলাই রোববার গ্রেফতারকৃত আসামীদের আদালতে প্রেরণ করলে ১৬৪ ধারার জবানবন্ধীতে তারা ঘটনার সত্ত্বতা স্বীকার করে বলেন তারা সকলেই এ পরিকল্পনা করে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে এবং আসামী আশিক আসামীদের ব্যবহৃত প্রাইভেটকারটি ভাড়া করে এনে উক্ত ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এনামুল হকের সাথে কথা বললে তিনি জানান অপরহণকারীদের মধ্যে তিন জনকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরন করেছি বাকিদের গ্রেফতারের জন্য আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মহিদুল ইসলাম মিঠু ও তার ভাই জাকির মোল্লা সহ তাদের পরিবারের বেশ ক’জনই ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপার কৃপালপুর গ্রামের বাসিন্দা। দীর্ঘদিন পূর্বে কাজের তাগিদে নরসিংদীর পাঁচদোনার আসমান্দীর চরে এসে মন্তু মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে বিভিন্ন কাজ করে আসছে। পলাতক অপহরণকারীরা এখনও জাকির ও মহিদুল ইসলাম মিঠুকে মোবাইলে হুমকি দিচ্ছে বলে জানিয়েছন বাদী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ