ঢাকা, বুধবার 02 August 2017, ১৮ শ্রাবণ ১৪২8, ৮ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রামগঞ্জে তরকারির কেজি সর্বনিম্ন ৫০ টাকা ধনে পাতা ৪শ

রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতা : শহরের কোথাও মিলছে না ৫০টাকার নিছে কোন তরকারি। তরকারিভেদে দাম থাকলেও কেজিতে ৫/৭টাকার ব্যবধানের বেশি নয়। 

মঙ্গলবার সকালে রামগঞ্জ শহরের তরকারির বাজার ঘুরে এ চিত্রই ফুটে উঠেছে। এছাড়া দেশী ধনে পাতার প্রতিকেজি ৪শটাকা দরেও বিক্রি হতে দেখা গেছে প্রত্যেকটি দোকানে।

 দোকানগুলো ঘুরে দেখা গেছে, দেশী শশা প্রতিকেজি ৬০, হাইব্রিড শশা ৪০, বেগুন ৬০, টমেটো ১৬০-১৭০, কাঁচামরিচ ১৫০, কাকরোল ৫০, ঝিঙ্গে ৬০, কচুর লতি দেশি ৬০, আমদানি কচুর লতি ৫০, পঞ্চমুখি কচু ৬০, পেপে ৪০ থেকে ৫০টাকা কেজি ধরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া কাঁচকলার হালি ৪০ থেকে ৫০টাকা ও দেশী ধনে পাতা ৪শ টাকা কেজি ধরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। এছাড়া ছোটআকৃতির রুই মাছ সর্বনিম্ন ৩৩০টাকা কেজি প্রতি, গরুর গোস্ত হাঁড়ছাড়া ৬০০টাকা, ফার্মের মুরগির ডিম হালি ৩৫ টাকা, ফার্মের মুরগি কেজি প্রতি ১৪০টাকা, কক-মুরগি ২৮০ ও দেশী মুরগি কেজি প্রতি সাড়ে তিনশ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অপরদিকে বাজারের মুদি দোকানগুলোতে ৫০টাকার নিচে কোন চাল নেই বলে জানালেন বিক্রেতারা । তবে বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, গত ১০/১২দিনের টানা বৃষ্টির কারণে বাজারের প্রভাব পেলেছে। আশা করি আগামী সপ্তাহে দাম কিছুটা কমবে।

তরকারিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের উর্ধ্বগতির কারণে উপজেলার নিম্ন ও মধ্যে আয়ের লোকদের নাভিশ্বাস দেখা দিয়েছে। সারাদিন হাঁড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে আয় হয় তিনশ থেকে সাড়ে তিনশ টাকা। অথছ ৪জনের সংসারের জন্য দেড়কেজি চাল কেনার পর এক কেজি মাছ কেনারও সামর্থ থাকে না। তার উপর গত বেশ কিছুদিন থেকে বৃষ্টির কারণে কাজে যেতে পারেনি অসহায় মানুষগুলো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ