ঢাকা, রোববার 15 October 2017, ৩০ আশ্বিন ১৪২8, ২৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

প্রধান বিচারপতির ফিরে এসে বিচার কাজে বসা  সুদূর পরাহত --------অ্যাটর্নি জেনারেল

 

স্টাফ রিপোর্টার : অ্যাটর্নি  জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার বিরুদ্ধে যে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে তাতে তার অস্ট্রেলিয়া থেকে ফিরে এসে বিচার কাজে বসা সুদূর পরাহত। গতকাল শনিবার বিকেলে সুপ্রিম কোর্টে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি। প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে  নৈতিক স্খলনসহ ১১টি অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্টের বিবৃতি দেয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মাহবুবে আলম।

মাহবুবে আলম বলেন, অন্যান্য বিচারপতিরা যদি প্রধান বিচারপতির সঙ্গে বসতে অহীনা প্রকাশ করেন তাহলে তো বিচার কাজ হবে না। সুতরাং বাস্তব অবস্থা বিচার করলে এস কে সিনহার আবার ফিরে এসে বিচার কাজে বসা সুদূর পরাহত বলে আমার মনে হয়। এ ছাড়া বাস্তব অবস্থা বিবেচনায় প্রধান বিচারপতি ফিরে এসে বিচার কাজে অংশ নিলে বিচার বিভাগে অচলাবস্থার সৃষ্টি হবে।

প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার ছুটি ও বিদেশ যাওয়া নিয়ে বিভিন্ন মহলের আলোচনা-সমালোচনা সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, প্রধান বিচারপতির সুস্থতা-অসুস্থতার বিষয়টি বড় কথা নয়। বিদেশ যাওয়ার ব্যাপারে তিনি স্পষ্ট বলেছেন তিনি স্বেচ্ছায় বিদেশ যাচ্ছেন। কেউ তাকে জোর করে পাঠাচ্ছেন না। তাই এই ব্যাপারে আর কোনো তর্ক-বিতর্ক থাকা উচিত নয় বলে আমি মনে করি।

সুপ্রিম কোর্টের বিবৃতির মধ্য দিয়ে প্রধান বিচারপতি প্রসঙ্গের অস্পষ্টতা দূর হয়েছে বলে মনে করেন মাহবুবে আলম। তিনি বলেন, যারা প্রধান বিচারপতির ছুটি ও তার কার্যভার নিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছেন সুপ্রিম কোর্টের এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে সবকিছুর পরিসমাপ্তি ঘটেছে। এ ব্যাপারে আর কোনো কথা বলা উচিত নয় বলে আমি মনে করি।

এক প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, আবদুল ওয়াহহাব মিয়া তো সাংবিধানকভাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আরো বলেন, সংবিধানের ৯৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবদুল ওয়াহহাব মিঞাকে ভারপ্রাপ্ত নিয়োগ দিয়েছেন। তিনি সুর্প্রিম কোর্টের সব দায়িত্ব পালন করবেন।

শুক্রবার বিদেশে যাওয়ার আগে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা এক বিবৃতিতে বলেন, প্রধান বিচারপতির প্রশাসনে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি কিংবা সরকারের হস্তক্ষেপ করার কোনো রেওয়াজ নেই। তিনি শুধুমাত্র রুটিন মাফিক দৈনন্দিন কাজ করবেন।

এ প্রসঙ্গে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, এটা তো কোনো যুক্তির কথা হলো না।

সুপ্রিম কোর্টের বিবৃতির নৈতিক স্খলন, অর্থপাচারসহ ১১টি অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে মাহবুবে আলম বলেন, এ অভিযোগগুলো ল এনফোর্সমেন্ট এজেন্সিগুলোর কাছে আছে। প্রধান বিচারপতির শপথ ভঙ্গ প্রসঙ্গে বলেন, শপথ ভঙ্গটা হলো, যখনই একটা অভিযোগ ওঠে বা প্রমাণিত হয়ে যায়, তখনই শপথ ভঙ্গ হয়ে যায়। তিনি বলেন, আমরা সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের কনসেপ্ট মেনে নিইনি।

অভিযোগ প্রসঙ্গে অ্যাটর্নি জেনারেল আরো বলেন, যে সমস্ত অভিযোগ আনা হয়েছে, যদি প্রমাণিত না হতো তাহলে প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে কথা বলা সম্ভব হতো না।

প্রসঙ্গত, গত ২ আগস্ট প্রধান বিচারপতি অসুস্থতার জন্য এক মাসের জন্য ছুটির আবেদন করেন বলে জানান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এ নিয়ে বিভিন্ন মহল বিশেষ করে বিএনপি অভিযাগ করে, প্রধান বিচারপতিকে বাধ্যতামূলকভাবে ছুটি ও বিদেশে যেতে বাধ্য করা হয়েছে।

এদিকে গতকাল শুক্রবার রাতে অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে প্রধান বিচারপতি বিমানবন্দরে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের জানান, তিনি সুস্থ আছেন। তিনি নিজের ইচ্ছায় বিদেশ যাচ্ছেন এবং ফিরে এসে আবার আদালতে বসবেন। তবে তিনি এই সময়ে বিচার বিভাগে সরকারের হস্তক্ষেপের আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

প্রধান বিচারপতির বক্তব্যকে বিভ্রান্তিমূলক বলে উল্লেখ করে গতকাল বিকেলে বিবৃতি দেয় সুপ্রিম কোর্ট। তাতে বলা হয়, নৈতিকস্খলনসহ ১১টি অভিযোগে তার সঙ্গে একই বেঞ্চে বসতে অনীহা প্রকাশ করেন পাঁচ বিচারপতি। এরই পরিপ্রেক্ষিতে এস কে সিনহা ছুটিতে যান বলে বিবৃতিতে বলা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ