ঢাকা, রোববার 15 October 2017, ৩০ আশ্বিন ১৪২8, ২৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বাহুবল আঞ্চলিক মহাসড়কে এখনও হাঁটু পানি স্কুলছাত্রী বলল সড়কে পানি উঠছে পাতাল থেকে

 

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা : হবিগঞ্জের বাহুবলে গত এক সপ্তাহ যাবৎ ভারী বৃষ্টিপাত না হওয়ার পরও আঞ্চলিক মহাসড়কে এখনও হাঁটু পানি জমে আছে। বহু আবেদন-নিবেদন, আন্দোলনের পরও পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থাই নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এই পানি ডিঙ্গিয়ে ঐ এলাকায় লোকজন চলাচল করতে না পারায় সড়কের পাশের দোকান-পাট গুলো দীর্ঘদিন যাবৎ ক্রেতা শুণ্য হয়ে পড়ছে। ফলে অর্ধশত ব্যবসায়ীদের লাখ লাখ টাকা লোকসান গুণতে হচ্ছে। 

এ আঞ্চলিক মহাসড়ক দিয়ে কলেজসহ ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আসা যাওয়া করে। গত এক সপ্তাহ যাবৎ বৃষ্টি না থাকলেও সড়কের পানি না কমায় শিশু শিক্ষার্থীদের ধারণা সড়কে পাতাল থেকে পানি উঠছে।

মিরপুর পাইলট স্কুল এন্ড কলেজের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী কানিজ হাফছা বলেন, অনেক দিন ধরে রাস্তায় পানির লাগি রাস্তা দিয়া যাইতাম পারি না। সিএনজির চাকা ডুবে যায়। শাম্মী বলল সড়কে নাকি পাতাল থেকে পানি উঠছে।

তারই সহপাঠি শাম্মী আক্তার জানালেন, আমি স্কুলে আসা যাওয়ার সময় সড়কে পানি দেখছি, রৌদ্রেও পানি কমছে না। তাই ভাবলাম মনে হয় পাতাল থেকে পানি উঠে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মিরপুর বাজারের শ্রীমঙ্গল সড়কে দীর্ঘদিন ধরে বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা সৃষ্টির ফলে পানি নিষ্কাশন বন্ধ হয়ে প্রায় ৬শত মিটার সড়ক জুড়ে হাঁটু পরিমাণ বৃষ্টির পানি জমে আছে। ফলে দুর্ভোগে দিন কাটাচ্ছে বাজারের অন্তত অর্ধশত ব্যবসায়ী আর ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন সহ স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী ও স্থানীয় জনসাধারণ। এই দুর্ভোগ থেকে রেহাই পেতে ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি উদ্যোগ নিয়ে অবৈধ স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করে রাস্তার পাশে ড্রেনেজ ব্যবস্থা করার দাবিতে কিছুদিন পূর্বে জেলা প্রশাসক, সওজ, উপজেলা পরিষদসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আবেদন করেছে। গত শনিবার সড়ক অবরোধ করে ব্যবসায়ীরা আন্দোলন করলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষয়টির সমাধানের প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরও এখনও সড়কে হাঁটু পানি।  

ব্যবসায়ী সোহেল আহম্মদ জানান, ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার কারণেই গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটিতে একটু বৃষ্টি হলেই আমাদের দোকানঘরের সামনে হাঁটু পানি জমে যায়। আর এই পানি শুকাতে লাগে অনেক দিন। গত শনিবার আমাদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে ইউএনও সাহেব এসে এক দিনের ব্যবধানে কাজ শুরু করবেন বলে আজ এক সপ্তাহ পার হওয়ার পরও কোন কাজ হয়নি।

ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক কদর আলী বলেন, প্রভাবশালীদের অবৈধ স্থাপনার কারণেই মূলত এ সমস্যা। পানি নিষ্কাশনের রাস্তা কয়েক মাস যাবৎ বন্ধ হওয়ায় বাজারের আঞ্চলিক মহাসড়কের অংশটুকু এখন আঞ্চলিক মহ-নদীতে পরিণত হচ্ছে। আমরা বাজার কমিটি অবৈধ স্থাপনাগুলো উচ্ছেদের জন্য বারবার লিখিত আবেদনের পরও রহস্যজনক কারণে এখন পর্যন্ত স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ হচ্ছেনা।  তিনি আরও বলেন, পানির নিচে সড়কে গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় প্রতিনিয়ত পথচারীরা বিভিন্নভাবে দুর্র্ঘটনার স্বীকার হচ্ছেন। এতে করে ঐ এলাকার দোকানপাট গুলোতে ক্রেতা শূণ্য হওয়ায় ব্যবসায়ীরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জসিম উদ্দীন বলেন, ড্রেন নির্মাণের জন্য প্রতিবন্ধকতা হিসেবে চিহ্নিত স্থাপনাগুলো চলতি সপ্তাহে স্ব-স্ব উদ্যোগে সরানোর জন্য দখলদারকে নোটিশ প্রদান করা হবে। পরে ৬শত ফুটের লম্বা ড্রেনের জন্য ২ লক্ষ টাকার একটি প্রকল্প হাতে নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ