ঢাকা, বুধবার 10 January 2018, ২৭ পৌষ ১৪২৪, ২২ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সিলেটে সেন্ট্রাল জোন ১৮৮ রানে অলআউট

 

স্পোর্টস রিপোর্টারা : বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে (বিসিএল) প্রথম দিনেই ১৮৮ রানে অলআউট হয়েছে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। সিলেটে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনকে ১৮৮ রানে অলআউট করে নর্থজোন। দিনের অপর ম্যাচে বিেিকএসপিতে সেঞ্চুরি করেছেন জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া মুমিনুল হক। গতকাল সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন বিসিবি নর্থ জোনের অধিনায়ক জহুরুল ইসলাম। তার সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমাণ করেন নর্থ জোনের বোলাররা। বিশেষ করে মিডিয়াম ফাস্ট বোলার আরিফুল হক। আরিফুল, শফিউল ও শুভাশীষ রায়ের বোলিং তোপে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন অলআউট হয়ে যায় ১৮৮ রানে। জবাবে নর্থ জোন তাদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ২৬ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৯৩ রান তুলে প্রথম দিন শেষ করেছে। ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের চেয়ে এখনো তারা ৯৫ রানে পিছিয়ে রয়েছে। ক্রিজে আছেন নাজমুল হোসেন শান্ত ও মিজানুর রহমান। মিজানুর ৮০ বল খেলে ৭টি চারের সাহায্যে ৪৯ রানে অপরাজিত আছেন। তার সঙ্গে ৭৭ বল খেলে ৬টি চারের সাহায্যে ৪২ রানে অপরাজিত আছেন শান্ত। তারা দুজন আজ দ্বিতীয় দিনে ব্যাট করতে নামবেন। ব্যাট করতে নেমে পানি পানের বিরতি পর্যন্ত ট্রাকেই ছিল ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। ১৪ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৩০ রান তুলেছিল এ সময়। এরপরই ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের ব্যাটসম্যানদের উপর ছড়ি ঘোড়াতে শুরু করে বিসিবি নর্থ জোনের বোলাররা। মধ্যাহ্ন বিরতিতে যাওয়ার আগেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসে বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের দুইবারের চ্যাম্পিয়ন ওয়ালটন। পরের পানি পানের বিরতিতে যাওয়ার আগে ৭ উইকেট হারিয়ে ১০১ রান সংগ্রহ করে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। চা বিরতিতে যাওয়ার আগেই ১৮৮ রানে অলআউট হয়ে যায় ওয়াহিদুল গনির শিষ্যরা। ব্যাট হাতে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা ছিলেন নিস্প্রভ। লোয়ার অর্ডারের ব্যাটসম্যান একমাত্র ইরফান শুক্কুর ব্যতিক্রম হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। ৫৫ বল খেলে ৭টি চার ও ২ ছক্কার সাহায্যে অপরাজিত ৫৭ রান করেন তিনি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৪ রান করেন ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের পেসার তাসকিন আহমেদ। ২৭টি রান আসে মেহরাব হোসেন জুনিয়রের ব্যাট থেকে। ১৯ রান করে রান আউটে কাটা পড়েন ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের অধিনায়ক মোশাররফ হোসেন রুবেল। বল হাতে বিসিবি নর্থ জোনের মিডিয়াম পেসার আরিফুল হক একাই নিয়েছেন ৪টি উইকেট। ২টি করে উইকেট নিয়েছেন শফিউল ইসলাম ও শুভাষীশ রায়। অপর উইকেটটি নিয়েছেন ফরহাদ রেজা।

দিনের অপর ম্যাচে বিকেএসপিতে প্রাইম ব্যাংক সাউথ জোনের মুখোমুখি হয় ইসলামি ব্যাংক ইস্ট জোন। চার দিনের ম্যাচে প্রথম দিন টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ইস্ট জোনের অধিনায়ক মুমিনুল। আর নিজের সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমান করেন এ বাঁহাতি। দলের দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে নিজের ১১তম সেঞ্চুরিও তুলে নেন। সেঞ্চুরিটি এখন ডাবলে রূপ নেয়ার অপেক্ষায়। বিকেএসপিতে মুমিনুল হকের ১৬৯ রানের সুবাদে ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোন টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে প্রাইম ব্যাংকের বিপক্ষে করেছে ৫ উইকেটে ৩৪০ রান। প্রথম দিনের লড়াইয়ে অনেকটাই এগিয়ে ইসলামী ব্যাংক। ব্যাটিংয়ে নেমে দিনের শুরুতেই লিটনকে হারায় ইসলামী ব্যাংক। সৌম্যর বলে বোল্ড হয়ে ২০ রানে সাজঘরে ফিরেন লিটন। তিনে নেমে শুরু থেকেই মুমিনুল ছিলেন ছন্দে। উইকেটে সেট হয়ে দারুণ সব শটে সাজাতে থাকেন নিজের ইনিংস। আরেক ওপেনার ইমতিয়াজ (৩৩) তাকে সঙ্গ দেন দলীয় ৮০ রান পর্যন্ত। মধ্যাহ্ন বিরতির পর ৭১ বলে মুমিনুল তুলে নেন ফিফটি। ফিফটি থেকে সেঞ্চুরিতে পৌঁছান অল্প সময়েই। এজন্য খেলেন ৫৫ বল। চা-বিরতির আগে ৯৮ রানে অপরাজিত ছিলেন। বিরতির পরের ওভারেই প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ১১তম সেঞ্চুরির স্বাদ পান। মুমিনুল এক প্রান্তে রানের চাকা সচল রাখলেও ইসলামী ব্যাংকের অন্যান্য ব্যাটসম্যানরা সেট হয়ে আউট হচ্ছিলেন। মোহাম্মদ আশরাফুল (১৩), ইয়াসির আলী (৩৩) ও অলোক কাপালি (১৯) সাজঘরে ফিরেন দ্রুতই। শেষ সেশনে ইসলামী ব্যাংক উইকেট হারায় মাত্র ১টি। মুমিনুলের সঙ্গে ১১৩ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েন জাকির হাসান (৪৭)। ১৬৯ রানের ইনিংসটি মুমিনুল সাজিয়েছেন ১৮ চার ও ২ ছক্কায়। ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ পেতে মুমিনুলকে করতে হবে ৩১ রান। আজ ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ পান কিনা সেটাই দেখার। আলো স্বল্পতায় বিকেএসপিতে খেলা হয়েছে ৮৩ ওভার। মাঝে ২৭ মিনিট খেলা বন্ধ ছিল মাঠের বাইরের ধোয়ার কারণে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ