ঢাকা, সোমবার 28 May 2018, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ১১ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গাজায় ইসরাইলী গোলাবর্ষণে দুই ফিলিস্তিনী নিহত

২৭ মে, রয়টার্স : গাজা উপত্যকায় ইসরাইলী সেনাবাহিনীর গুলীবর্ষণে ফিলিস্তিনী জিহাদি গোষ্ঠী ইসলামিক জিহাদর দুই সদস্য নিহত হয়েছে। গতকাল রোববারের এই ঘটনায় তৃতীয় আরও এক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। গাজার স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা এখবর জানিয়েছে।

ইসরাইলী সেনাবাহিনী নিশ্চিত করেছে তারা জিহাদি গোষ্ঠীটির পর্যবেক্ষণ পোস্টে হামলা চালিয়েছে। তাদের দাবি, আগের দিন রাতে সীমান্ত বেস্টনীতে বোমা হামলার ঘটনায় তারা পাল্টা হামলা চালিয়েছে। টুইটারে ইসরাইলী সেনাবাহিনী জানায়, বোমাটির বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে সেনাবাহিনীর প্রকৌশলীরা, এতে কোনও হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

৩০ মার্চ থেকে ফিলিস্তিনীরা গ্রেট মার্চ অব রিটার্ন নামে ভূমি দিবসের বিক্ষোভ শুরু করলে গাজায় ইসরাইলী সহিংসতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এ পর্যন্ত অন্তত ১১৩ জন ফিলিস্তিনী নিহত ও কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী ইসরাইলী গুলীতে আহত হয়েছে।

গতকাল রোববারের গোলা বর্ষণের ঘটনায় গাজা সীমান্তে ইসরাইলের কেউ হতাহত হয়নি। তবে ইসরাইল দাবি করেছে তাদের আবাদী জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

গাজা নিয়ন্ত্রণ করছে হামাস। ইসরাইল হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে মনে করে। ইসলামিক জিহাদ নামের গোষ্ঠীটি কাজ করে স্বতন্ত্র ও স্বাধীনভাবে। হামাসের সঙ্গে তাদের কোনও সম্পর্ক নেই।

এদিকে, অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার দক্ষিণাঞ্চলে আবারও বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরাইল। ইসরাইলে প্রতিরক্ষা বাহিনীর বরাত দিয়ে দেশটির সংবাদমাধ্যম হারেৎজের খবরে বলা হয়েছে, শনিবার রাতে রাফার কাছে হামাসের লক্ষ্যবস্তুতে এসব হামলা চালানো হয়েছে। এদিন সকালে চার ফিলিস্তিনী সীমান্ত বেড়া অতিক্রম করে জ্বালানিভর্তি বিস্ফোরক ছুঁড়ে পালিয়ে যাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় এই হামলা চালানো হয়েছে দাবি করেছে ইসরাইলের প্রতিরক্ষা বাহিনী।

উল্লেখ্য, ফিলিস্তিনের ভূমি দখল করে ১৯৪৮ সালের ১৫ মে প্রতিষ্ঠিত হয় ইসরাইল নামের রাষ্ট্র। ১৯৭৬ সালের ৩০ মার্চ ইসরাইলের দক্ষিণাঞ্চলে ইহুদি বসতি নির্মাণের প্রতিবাদ করায় ছয় ফিলিস্তিনীকে হত্যা করা হয়। পরের বছর থেকেই ৩০ মার্চ থেকে ১৫ মে পর্যন্ত পরবর্তী ছয় সপ্তাহকে ভূমি দিবস হিসেবে পালন করার ঘোষণা দেয় ফিলিস্তিনীরা। তবে এবার বিক্ষোভ এখনও অব্যাহত রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ