ঢাকা, রোববার 3 June 2018, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ১৭ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ব্যাংকিং খাত ক্ষতিগ্রস্ত হলে দেশের উন্নয়ন কাজে আসবে না -বাণিজ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ব্যাংকিং খাত নিয়ে আমাদের আরও সতর্ক ও যতœশীল হতে হবে। এটি স্পর্শকাতর জায়গা। এখানে ক্ষতিগ্রস্ত হলে দেশের উন্নয়ন কাজে আসবে না।
গতকাল শনিবার রাজধানীর ঢাকাক্লাবের স্যামসন এইচ চৌধুরী সেন্টারে ‘জাতীয় অর্থনীতিতে আবাসন খাত’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। গোলটেবিল আলোচনায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট তাসমিয়াহ নুহিয়া আহমেদ। সঞ্চালনায় ছিলেন টিভি উপস্থাপক জিল্লুর রহমান। সভাপতিত্ব করেন বিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন।
আবাসন মালিকদের সংগঠন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং সোসাইটি অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। আলোচনা সভায় সংসদ সদস্য নূরজাহান বেগম মুক্তা, আবাসন খাতের সংগঠন রিহ্যাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি নূরন্নবী চৌধুরী (শাওন), প্রথম সহ-সভাপতি লিয়াকত আলী ভুঁইয়া, দৈনিক আমাদের অর্থনীতি পত্রিকার সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান, বারভিডার সভাপতি হাবিব উল্লাহ ডন, ঢাবির উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. রাশেদ আল মাহমুদ তিতুমীর বক্তব্য রাখেন।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ব্যাংকিং খাত নিয়ে আমাদের গুরুত্ব বাড়াতে হবে। আমাদের যতœশীল হতে হবে। এক সময়ের ইসলামী ব্যাংক নাম করা ছিল। এখন সেখানে সামান্য টাকাও পাওয়া মুশকিল। গ্রাহককে চেক দিয়ে বসে থাকতে হয়।
তিনি বলেন, এখন সরকারি প্রতিষ্ঠানের আমানতের টাকা বেসরকারি ব্যাংকে ৫০ ভাগ রাখা যায়। যেটা আগে ছিল ২৫ শতাংশ। ব্যাংক মালিকরা আশ্বাস দিয়েছেন ঋণের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে আনবেন।
মন্ত্রী বলেন, অর্থনীতিতে আবাসন খাতের গুরুত্ব অনেক। এই খাতকে টিকিয়ে রাখতে হবে। কারণ এ খাতের সঙ্গে অনেকগুলো ব্যাকওয়ার্ড লিংক জড়িত। আর বাসস্থান মানুষের মৌলিক অধিকার। সরকার এ অধিকার প্রতিষ্ঠায় সচেষ্ট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ