ঢাকা, রোববার 26 January 2020, ১২ মাঘ ১৪২৬, ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

বিএনপির কোনো নির্বাচনী পরিকল্পনা নেই: তাপস * ইশতিহারে চমক দেখানো হবে : আতিক 

 

স্টাফ রিপোর্টার: ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, আমি আশা করছি আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকাবাসী আমাদের ঢাকার উন্নয়নের লক্ষ্যে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন। তারা ভোট দিয়ে তাদের সেবককে বেছে নেবেন। বিএনপি প্রার্থীরা নির্বাচন নিয়ে নানা অভিযোগ করলেও ঢাকাবাসীর কোনো অভিযোগ নেই। নির্বাচিত হলে তারা (বিএনপি) কী করবেন এ ধরনের কোনো পরিকল্পনাও তাদের নেই। তারা শুধু অভিযোগই করছেন।

গতকাল শনিবার বিকেলে রাজধানীর বাবুবাজার ব্রিজ হতে গণসংযোগ শুরুর সময় এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

তাপস বলেন, আমরা ঢাকাবাসীর উন্নয়নের লক্ষ্যে রূপরেখা দিচ্ছি। যেখানে আমরা যাচ্ছি, ঢাকাবাসী আমাদের সাদরে গ্রহণ করছে। আমাদের উন্নয়নের রূপরেখার পক্ষে বিপুল জনসমর্থন আমরা লক্ষ্য করছি। আমাদের স্বপ্ন ও রূপরেখা নির্বাচনের ইশতেহারে বিস্তারিত বলা হবে। যার কাজ চলছে। শিগগিরই তা আপনাদের সামনে উপস্থাপন করা হবে।

তিনি বলেন, আমরা নগরের সব আধুনিক সেবা ও সুবিধা নিশ্চিত করতে চাই। ৩০ বছরের দীর্ঘমেয়াদি মহাপরিকল্পনা আমরা নেব। ঢাকাকে আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

শনিবার সকাল থেকে বাবুবাজার ব্রিজ এলাকায় জড়ো হতে থাকেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, যুব মহিলা লীগ, ছাত্রলীগসহ দলটির সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। মিছিল ও নানা স্লোগানে তারা মুখর করে তুলেন আশপাশের এলাকা।

দেখা যায়, স্থানীয় কাউন্সিলর ও নেতাকর্মীরা ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস উপস্থিত হলে তার হাতে নৌকা প্রতীক তুলে দিয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। পরে দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে পুরান এই এলাকার বিভিন্ন সড়কে গণসংযোগ শুরু করেন তাপস।

সিটি নির্বাচনের বাকি ছয় দিনে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাইতে নেতা–কর্মীদের আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগ–মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম।

গতকাল শনিবার দুপুরে নির্বাচনী প্রচারের ১৬তম দিনে ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের নদ্দা এলাকার কালাচাঁদপুর মোড় আয়োজিত নির্বাচনী সমাবেশে এসব কথা বলেন আতিকুল ইসলাম। আগামীকাল রোববার নির্বাচনী ইশতেহার দেওয়া হবে জানিয়ে আজ তিনি বলেন, ‘রোববার আমার নির্বাচনী ইশতেহার দেব। সেখানে চমক থাকবে। আর সচল, সুস্থ ও মানবিক ঢাকা গড়ার অঙ্গীকার থাকবে।’

আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আর বেশি দিন বাকি নেই। আজ বাদে ছয় দিন আছে। এ ছয় দিনে সব ভোটারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাইতে হবে।’ তিনি দলীয় নেতা–কর্মীদের আহ্বান জানান ভোটারদের গিয়ে বলতে হবে একটি আধুনিক ও যানজটমুক্ত শহর গড়তে নৌকায় ভোট দিতে।

এরপর সাইকেল চালিয়ে নদ্দা কালাচাঁদপুর বাজারে প্রচার চালান আতিকুল ইসলাম। তবে আচরণবিধি লঙ্ঘন হবে জেনে কালাচাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কালাচাঁদপুর হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠে ১৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশে যোগ দেননি আতিকুল ইসলাম।

এই স্কুলের মাঠে মঞ্চ তৈরি করে নির্বাচনী সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সেখানে সকাল থেকেই স্কুল ও কলেজের বিভিন্ন শ্রেণির ক্লাস চলছিল। তবে সমাবেশের কারণে সকাল সাড়ে ১০টার পর স্কুল ও কলেজের ক্লাস বন্ধ হয়ে যায়। কালাচাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কালাচাঁদপুর হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠে ক্লাস বন্ধ করে মাঠে নির্বাচনী সমাবেশ ও উচ্চ স্বরে নির্বাচনী গান ও স্লোগান চলছিল। সাড়ে ১০টার পর থেকে স্কুলের বেশির ভাগ ক্লাস বন্ধ করা হয়। তবে কলেজের ক্লাসের সময়েই মাঠে সমাবেশ হয়।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম নদ্দা কালাচাঁদপুর এলাকায় সাইকেল চালিয়ে প্রচার চালান । ঢাকা, ২৫ জানুয়ারি ২০২০। ছবি: সাজিদ হোসেন

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম নদ্দা কালাচাঁদপুর এলাকায় সাইকেল চালিয়ে প্রচার চালান । ঢাকা, ২৫ জানুয়ারি ২০২০। ছবি: সাজিদ হোসেন

স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, স্কুলের মাঠে রাজনৈতিক ও নির্বাচনী সমাবেশের অনুমতি নেই। তা ছাড়া তাঁদের কাছ থেকে কেউ অনুমতি নেয়নি।

গতকাল কালাচাঁদপুর মোড়ে নির্বাচনী সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এ মান্নান, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান, উত্তরের ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ–সমর্থিত কাউন্সিলর পদপ্রার্থী জাকির হোসেন, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হাসিনা বারী ও ১৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

এরপর যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে প্রগতি সরণিতে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমি চাই না কোনো আচরণবিধি লঙ্ঘন হোক। এ জন্য স্কুলের মাঠের সমাবেশ বাতিল করে দিয়েছি। এ কাজে কাউকে উৎসাহ দেব না। আমি চাই না নির্বাচনী প্রচারণায় কোনো শিশু বা ছাত্রছাত্রী থাকুক।’

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টায় গুলশান স্বাস্থ্য ক্লাব পার্কে গণসংযোগ করেন আতিকুল ইসলাম। এ সময় তিনি বলেন, ‘উত্তর সিটি করপোরেশন হবে আধুনিক, সচল ও মানবিক। আমি চাই আমাদের আগামী প্রজন্ম বেড়ে উঠুক সুস্থতায়।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ