ঢাকা, বুধবার 1 April 2020, ১৮ চৈত্র ১৪২৬, ৬ শাবান ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

‘মোদি এদেশের মাটিতে পা রাখলে রক্তের বন্যা বয়ে যাবে’

ছবি: ইউএনবি

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: ভারতের বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় দিল্লিতে মুসলিমদের গণহত্যা-নির্যাতন ও মসজিদে অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ সিলেট মহানগর শাখা।

শুক্রবার বাদ জুমা বন্দরবাজার এলাকায় দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি মিছিল বের করে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সিটি পয়েন্টে গিয়ে পথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় বক্তরা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেন, তিনি বলেছেন ভারতের ঘটনা তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়। ‘মন্ত্রীর এরকম বক্তব্য দেশের ৯৫ ভাগ মুসলমানের কলিজায় আঘাত লেগেছে। তিনি একজন মুসলমান হয়ে তার মুখে এ রকম বক্তব্য মানায় না।’

এ সময় এ বক্তব্য প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান বক্তারা।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সিলেট মহানগর সভাপতি মাওলানা খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে ও ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মুহাম্মদ লুৎফুর রহমানের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন-জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী, মহানগর জমিয়তের সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ হাফিজ আব্দুর রহমান সিদ্দিকী, জেলার সাধারণ  সম্পাদক মাওলানা আতাউর রহমান প্রমুখ।

এছাড়াও এ ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ সিলেট জেলা শাখা।বৃহস্পতিবার বাদ আছর বন্দরবাজারস্থ দলীয় অফিসের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সিটি পয়েন্টে গিয়ে পথসভা করে।

এ সময় বিক্ষুব্ধ ছাত্র জমিয়তের নেতা-কর্মী ও মুসল্লিরা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কুশপুত্তলিকা দাহ করে এবং জুতা নিক্ষেপ করে।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘অসাম্প্রদায়িক নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে কসাই ও সন্ত্রাসী মোদিকে অতিথি করা হয়েছে। মোদি এদেশের মাটিতে পা রাখলে রক্তের বন্যা বয়ে যাবে। প্রয়োজনে এদেশের মাটিতে আবারও বদরের যুদ্ধ হবে। কোনো অবস্থাতেই মোদিকে বাংলার মাটিতে ঢুকতে দেয়া হবে না।’

তারা বলেন, ‘চা বিক্রেতা মোদি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার কোনো যোগ্যতা রাখে না। তবুও স্বৈরতান্ত্রিকভাবে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হয়ে নিরীহ মুসলমানদের ওপর হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে। নির্বিচারে গুলি করে মারছে। মসজিদ-মাদরাসা জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দিচ্ছে, মিনারে হনুমানের পতাকা লাগিয়েছে। এসব কাজ বিশ্বের ৪০০ কোটি মুসলমানদের কলিজায় আঘাত দিয়েছে।’

প্রসঙ্গত, ভারতের দিল্লিতে সহিংসতার ঘটনায় ৩২ জনের মৃত্যু ও প্রায় দুই শতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন বলে এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ