ঢাকা, শুক্রবার 13 March 2020, ২৯ ফাল্গুন ১৪২৬, ১৭ রজব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৪ হাজার ৬০০ ছাড়িয়েছে 

 

# সব ধরনের পর্যটন ভিসা স্থগিত করেছে ভারত # ইরানে ভাইস প্রেসিডেন্টসহ মন্ত্রিসভার ২ সদস্য আক্রান্ত # করোনা আতঙ্কে কারবালায় জুমার নামাজ হবে না # ইতালিতে খ্যাতিমান চিকিৎসকের মৃত্যু # সিঙ্গাপুরে সব মসজিদে তালা # কুয়েতে ২ সপ্তাহের ছুটি ঘোষণা *

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা আতংকে বিচ্ছিন্ন হতে চলেছে সারাবিশ্ব। মহামারিতে রূপ নেওয়া এই ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে অন্য দেশের নাগরিকদের প্রবেশে বাধা দেওয়া থেকে শুরু করে ভিসা দেওয়া বন্ধ করে দিচ্ছে অনেকগুলো বিশ্বের অনেকগুলো রাষ্ট্র। গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত আড়াই মাসে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বিশ্বের ১১৮টি দেশ ও অঞ্চলে আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে প্রায় সোয়া লাখে, মৃতের সংখ্যাও ৪ হাজার ৬০০ ছাড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এই পরিস্থিতিতে যুক্তরাজ্য ছাড়া ইউরোপের সব দেশের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। কয়েকটি বিশেষ ক্যাটাগরির বাইরে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত বিশ্বের সব দেশের নাগরিকদের ভিসা স্থগিত করেছে ভারত সরকার।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বুধবার করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকে মহামারী ঘোষণা করার পর যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় এর তাৎক্ষণিক প্রভাব পড়েছে বিশ্ববাজারে। বড় ধরনের পতন ঘটেছে অধিকাংশ শেয়ার সূচকে। করোনা ভাইরাইসের কারণে এমনিতেই চাপে থাকা এয়ারলাইন্সগুলোও যুক্তরাষ্ট্রের নতুন এ নিষেধাজ্ঞার ফলে বড় ধরনের সমস্যায় পড়বে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। আরও নতুন নতুন দেশ ও এলাকায় স্কুল বন্ধের মত সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে সরকারগুলো। বাংলাদেশ স্কুল বন্ধের সিদ্ধান্ত এখনও না নিলেও প্রতিদিনের অ্যাসেম্বলি মাঠের বদলে ক্লাসরুমে করার নির্দেশ দিয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিশ্বে এ রোগে আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ২৪ হাজার ৫১৯ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৬০৭ জনের।  আক্রান্ত ও মৃত্যুর অধিকাংশ ঘটনা ঘটেছে চীনে, তবে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি জনসংখ্যার দেশটি নানা ধরনের কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে পরিস্থিতি সামলে ওঠার পর এখন সংক্রমণ বাড়ছে  ইউরোপ, আমেরিকায়। 

বিশ্ব সংবাদ মাধ্যমগুলোর খবরে বলা হচ্ছে, চীনের মূল ভূখ-ে আক্রান্ত ৮০,৯৮০ জন, মৃতের সংখ্যা  ৩,১৬৯ জন। আর চীনের বাইরে: ৪৩,৫৩৯ জন আক্রান্ত, মৃত্যু হয়েছে ১,৪৩৮ জনের। সব মিলিয়ে বিশ্বজুড়ে: ১,২৪,৫১৯ জন আক্রান্ত, ৪,৬০৭ জনের মৃত্যু। চীনের বাইরে ইতালিতে: ৮২৭, ইরানে: ৩৫৪, দক্ষিণ কোরিয়াতে ৬৬, ফ্রান্সে: ৪৮, স্পেনে: ৪৭, যুক্তরাষ্ট্রে: ২৯, জাপানে: ১৫, ইরাকে: ৭, যুক্তরাজ্যে: ৬, নেদারল্যান্ডসে: ৫, সুইজারল্যান্ডে: ৪, জার্মানিতে: ৩, হংকংয়ে: ৩, অস্ট্রেলিয়ায়: ৩, সান মারিনোতে: ২, কানাডায়: ১, মিশরে: ১, লেবাননে: ১, থাইল্যান্ডে: ১, ফিলিপিন্সে: ১, তাইওয়ানে: ১, আয়ারল্যান্ডে:১, ইন্দোনেশিয়াতে: ১,  আর্জেন্টিনায়: ১, পানামাতে: ১, বুলগেরিয়ায়: ১, মরক্কোতে: ১ এবং অন্যান্য দেশে: ৭ জন। 

ইরানের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইশাক জাহাঙ্গিরিসহ মন্ত্রিসভার ২ সদস্য করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। দেশটির আধাসরকারি ফার্স নিউজের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে। বেশ কয়েক দিন ধরেই ইশাক জাহাঙ্গিরির স্বাস্থ্য ভালো যাচ্ছিল না। তার শারীরিক অবস্থা নিয়ে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা চলছিল। সাম্প্রতিক শীর্ষপর্যায়ের বৈঠকগুলোতে তাকে দেখা যায়নি। এসবের মধ্যেই বুধবার এমন খবর এসেছে।

ফার্সের খবরে বলা হয়, হস্তশিল্প, পর্যটন ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যবিষয়ক মন্ত্রী আলী আসগর মুনসিন এবং শিল্প, খনিজ ও বাণিজ্যবিষয়ক মন্ত্রী রেজা রাহমানিও প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে এই সংক্রমণ নিয়ে দেশটির সরকারি গণমাধ্যমে কোনো খবর প্রকাশিত হয়নি। করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে ইরান অন্যতম।

ডিসেম্বরের শেষে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রথম ঘটনা ধরা পড়ে। সেই হুবেই প্রদেশে বুধবার নতুন রোগীর সংখ্যা আবার এক অংকের ঘরে নেমে এসেছে। চীনের মূলভূখ-ে বুধবার নতুন করে ১৫ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যাদের মধ্যে আটজন হুবেই প্রদেশের। তাদের নিয়ে চীনে নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮০ হাজার ৯৮০ জনে। দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ৬২ হাজার ৭৯৩ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন, যা মোট সংক্রমণের প্রায় ৮০ শতাংশ। বুধবার আরও ১১ জনের মৃত্যু হওয়ায় চীনের মূলভূখ-ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ১৬৯ জনে। আর ১৪৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে চীনের বাইরে বিভিন্ন দেশে।  চীনের পর আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি ইউরোপের দেশ ইতালিতে। সেখানে ১২ হাজার ৪৬২ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে, মৃত্যু হয়েছে ৮২৭ জনের। এছাড়া ইরান ৩৫৪ জন, দক্ষিণ কোরিয়া ৬৬ এবং ফ্রান্সে ৪৮ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে নভেল করোনা ভাইরাস। 

এদিকে করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে শিয়া ইসলামের পবিত্র শহর কারবালায় আজ শুক্রবার জুমার নামাজ হবে না। বুধবার শহরটির প্রশাসনের এক বিবৃতিতে এমন তথ্য জানা গেছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে। প্রতিবেশী নাজাফের মতোই কারবালায় শিয়া তীর্থযাত্রীরা ইরাক ও বিদেশ থেকে এসে জড়ো হন। গত শুক্রবারেও জুমার নামাজ পড়া হয়নি সেখানে। দেশটিতে করোনা ভাইরাস রোগীর সংখ্যা বেড়ে বর্তমানে ৭৯ জন। 

এক বিবৃতিতে ইরাকের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, দশ দিনের জন্য বাগদাদের স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রাখা হয়েছে। এছাড়া ভাইরাস উপদ্রুত দেশগুলোতে ভ্রমণের ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এদিকে প্রতিবেশী দেশ ইরানের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইশাক জাহাঙ্গিরিসহ মন্ত্রিসভার দুই সদস্য করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। দেশটির আধাসরকারি ফার্স নিউজের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

বেশ কয়েক দিন ধরেই ইশাক জাহাঙ্গিরির স্বাস্থ্য ভালো যাচ্ছিল না। তার শারীরিক অবস্থা নিয়ে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা চলছিল। সাম্প্রতিক শীর্ষপর্যায়ের বৈঠকগুলোতে তাকে দেখা যায়নি। এসবের মধ্যেই বুধবার এমন খবর এসেছে। ফার্সের খবরে বলা হয়, হস্তশিল্প, পর্যটন ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যবিষয়ক মন্ত্রী আলী আসগর মুনসিন এবং শিল্প, খনিজ ও বাণিজ্যবিষয়ক মন্ত্রী রেজা রাহমানিও প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

তবে এই সংক্রমণ নিয়ে দেশটির সরকারি গণমাধ্যমে কোনো খবর প্রকাশিত হয়নি। করোনা ভাইরাসে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে ইরান অন্যতম। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে দেশটির মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ৬২ জন মারা গেছেন। বুধবার পর্যন্ত দেশজুড়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৫৪ জনে। ইরানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, এখন পর্যন্ত ৯ হাজার লোক এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। দেশের ৩১টি প্রদেশেই এই সংক্রমণ দেখা গেছে।

মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে আক্রান্ত হওয়া ৯ হাজার ৭০০ কোভিড-১৯ রোগীর অধিকাংশই ইরানের। মূলত শিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটির কারণেই অঞ্চলটিতে ভাইরাস এতটা মারাত্মক রূপ নিয়েছে।

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন ইতালির এক খ্যাতিমান চিকিৎসক। উত্তর ইতালিয় ভেরেসের মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান ছিলেন তিনি। রবার্তো স্টেলা নামের ওই চিকিৎসকের বয়স ছিল ৬৭ বছর। করোনায় আক্রান্তের কারণে তার শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা হয়।

রবার্তো স্টেলা ইতালির একজন খ্যাতিমান চিকিৎসক ছিলেন। ভেরেস নামক শহরের মেয়র তার মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেছেন। তার মৃত্যুতে ইতালির ডক্টরস ও জেনারেল প্রাক্টিশনার্স ফেডারেশন শোক জানিয়েছে। তারা মনে করেন, করোনার কারণে ইতালির যেসব চিকিৎসক ও নার্সরা বিপদের মুখোমুখি হচ্ছেন; তাদের বিষয়ে সরকার খেয়াল রাখবে সরকার।

করোনা ভাইরাস ইতালিতে মারণ থাবা বসিয়েই চলেছে। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস চীনের পর ভয়ঙ্কর হিসেবে দেখা দিয়েছে ইউরোপের এই দেশটিতে। এরই মধ্যে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে দেশটি। সেখানে মৃত্যের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮২৭ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১৯৬ জন। ইতালিতে একদিনেই নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৩১৪ জন। চিকিৎসাধীন আছেন ১০ হাজার ৫৯০ জন।

বিশ্বজুড়ে করোনা আতঙ্কের মধ্যে এবার বন্ধ করে দেওয়া হল সিঙ্গাপুরের সব মসজিদ। ইসলামিক রিলিজিয়াস কাউন্সিল অব সিঙ্গাপুর (এমইউআইএস) আজ বৃহস্পতিবার এক ঘোষণায় বলেছে করোনার বিস্তার রোধে দেশটির সব মসজিদ বন্ধ থাকবে।

এমইউআইএস আরও বলেছে যে, ফতোয়া কমিটি এ ব্যাপারে একটি ফতোয়া জারি করেছে। সেখানে ইসলামি আইন অনুযায়ী মসজিদ বন্ধের এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, এমনকি ১৩ মার্চ শুক্রবারের জুমার নামাজও বাতিল করা হয়েছে।

এরই মধ্যে দেশটির বেশ কিছু মসজিদ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। মসজিদগুলো হচ্ছে-মসজিদে মুত্তাকিন, মসজিদে কাসিম, মসজিদে হাজ্জাহ ফাতিমাহ এবং মসজিদে জামে সুলিয়া। ১৩ মার্চ সকাল থেকে ১৭ মার্চ পর্যন্ত এই ৫ দিন সিঙ্গাপুরের সব মসজিদ পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। এই সময়ে মসজিদগুলো পরিস্কার করে জীবাণু মুক্ত করা হবে। 

এমইউআইএস মসজিদ বন্ধের কারণ ব্যাখ্যা করে বলেছে, মুফতি এবং আন্তর্জাতিক ফতোয়া কমিটি জনস্বাস্থ্য ও সুরক্ষার স্বার্থে এই পদক্ষেপের বিষয়ে একমত হয়েছে। তাদের সম্মতিতেই মসজিদ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

 

বিবৃতিতে তারা বলেছে, মুসলমানদের উচিত জুমার বদলে তাদের নিয়মিত দুপুরের (জোহর) নামাজ আদায় করা। শুক্রবারের জুমার খুতবা  অনলাইনে প্রচার করা হবে।

এছাড়া মসজিদগুলিতে পরবর্তী দুই সপ্তাহের জন্য (১৩ মার্চ থেকে ২৭ মার্চ) পর্যন্ত ধর্মীয় কার্যক্রম, বক্তৃতা, ধর্মীয় ক্লাস এবং মসজিদ ভিত্তিক কিন্ডারগার্টেন সেশন বাতিল করার কথা বলা হয়েছে।

মুসলিম সম্প্রদায়কে সুস্বাস্থ্যের জন্য জীবাণুমুক্ত থাকা এবং সামাজিক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বলা হয়েছে। যাতে করোনাভাইরাস আরও ছড়িয়ে পড়তে না পারে।

ভয়ংকর এই ভাইরাস থেকে আত্মরক্ষায় বহুমুখী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সিঙ্গাপুরের মুসলিমরা। তারা মসজিদভিত্তিক গণসচেতনতার কাজ করছে। এর মধ্যে আছে মসজিদে নিজস্ব জায়নামাজ ব্যবহার ও মাস্ক ব্যবহার এবং মুসাফা এড়িয়ে চলা ইত্যাদি। সিঙ্গাপুরের প্রায় ৬০ লাখ জনসংখ্যার প্রায় ১৬ ভাগ মুসলিম। এ ছাড়া বিপুলসংখ্যক অভিবাসী মুসলিম রয়েছে সে দেশে। প্রতি শুক্রবার বিপুলসংখ্যক মুসল্লি মসজিদে একত্র হয়।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কায় কুয়েতে ২ সপ্তাহ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। কুয়েত মন্ত্রিপরিষদ বুধবার সন্ধ্যায় এমন সিদ্ধান্তের কথা জানায়। এ ছাড়া করোনা প্রতিরোধে এ সময় অন্যান্য সিদ্ধান্তের কথাও ঘোষণা করা হয়।

মন্ত্রিপরিষদের পক্ষ থেকে জানানো সিদ্ধান্তগুলো হলোÍপাবলিক ও প্রাইভেট সেক্টরে ১২ থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত ছুটি থাকবে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত কুয়েতের সব বাণিজ্যিক ফ্লাইট স্থগিত থাকবে। সংক্রমণ এড়াতে সব ধরনের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। রেস্তোরাঁ, ক্যাফে, হল, শপিং সেন্টার, প্রাইভেট হেলথ ইনস্টিটিউট বন্ধ থাকবে। ব্যাংকগুলো ১২ থেকে ২৯ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে (এটিএমএস উন্মুক্ত থাকবে)।

এমন সিদ্ধান্ত জানানোর পর থেকেই কুয়েতের বিভিন্ন সুপারমার্কেটে উপচেপড়া ভিড় লক্ষ করা যায়। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, লাইন ধরে সুপারমার্কেটগুলোতে কেনাকাটা করছেন শত শত মানুষ। বিভিন্ন শুকনো খাবারসহ ছুটির সময়ের জন্য নানা প্রয়োজনীয় পণ্য ও সামগ্রী কিনে রাখছেন তারা।

এরই মধ্যে কুয়েতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৭২ জনে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তবে সেখানে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত কোনো মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি। এ ছাড়া দেশটিতে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর দুজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। নেদারল্যান্ডসভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বিএনও নিউজ এ খবর জানিয়েছে।

ভারতে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ায়, সব ধরনের পর্যটন ভিসা স্থগিত করেছে দেশটি। এরই মধ্যে করোনাভাইরাস বিশ্বব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে বলে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এমন পরিস্থিতিতে কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া সব ধরনের পর্যটন ভিসা আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত স্থগিত করেছে ভারত। সব মিলিয়ে ভারতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ৬৭ জন। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন ইতালি থেকে ভারতে গেছেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এ খবর জানিয়েছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সব পর্যটন ভিসা স্থগিত করা হয়েছে। তবে কূটনীতিক, জাতিসংঘ বা আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলোর কর্মকর্তারা এ পদক্ষেপের আওতাধীন নন। ভারত জানিয়েছে, আগামী ১৩ মার্চ (ভারতীয় সময়) সন্ধ্যা সাড়ে ৫টা থেকে ভিসার এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে। যে সব দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়েছে, এর আগে সে সব দেশের নাগরিকদের ভিসা বাতিল করা হয়েছিল। করোনাভাইরাসকে বৈশ্বিক মহামারী বলে ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, অর্থাৎ ভাইরাসটির সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বজুড়ে এবং বহু মানুষ এতে আক্রান্ত। 

একাধিক টুইট বার্তায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, তারা নিয়মিত করোনা ভাইরাসজনিত কোভিড-১৯ রোগ ছড়িয়ে পড়া পর্যবেক্ষণ করছে এবং ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ার দ্রুততা ও ব্যাপকতা নিয়ে সংস্থাটি উদ্বিগ্ন। এ ছাড়া ভাইরাসটি প্রতিরোধে বিপজ্জনক পর্যায়ের নিরুপায়তা নিয়েও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা উদ্বিগ্ন বলে জানায়।

এদিন সন্ধ্যায় ভিসা স্থগিত করে ভারত সরকার জানিয়েছে, যাদের প্রবাসী ভারতীয় কার্ড রয়েছে, তাদের বিমানবন্দর ছাড়ার ভিসাহীন সুবিধা আগামীকাল ১৩ মার্চ (ভারতীয় সময়) সন্ধ্যা সাড়ে ৫টা থেকে আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।

সরকার আরো জানিয়েছে, করোনায় আক্রান্ত দেশ চীন, ইতালি, ইরান, কোরিয়া প্রজাতন্ত্র, ফ্রান্স, স্পেন ও জার্মানি থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারির পর ভারতে আসা ব্যক্তিরা ১৪ দিন পর্যন্ত  আলাদাভাবে (কোয়ারেন্টাইনে) থাকবেন।

সরকারি ঘোষণায় আরো বলা হয়, নির্দিষ্ট চেকপোস্টগুলোতে সীমান্ত দিয়ে ভূমিসংলগ্ন চলাচল কড়াকড়ি করে ব্যাপকভাবে পরীক্ষা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আলাদাভাবে বিজ্ঞপ্তিও জারি করা হয়েছে। ভারতে এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৬৭ জন। এর মধ্যে মহারাষ্ট্র, রাজস্থান, কেরালা ও কর্ণাটকে নতুন আক্রান্তের খবর মিলেছে।

ভারতের বিভিন্ন স্থানে করোনা আতঙ্কে স্কুল ও কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে। আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত সব স্কুল বন্ধ রেখেছে দিল্লি। স্কুল ও কলেজ বন্ধ কাশ্মীরেও। এ ছাড়া বার্ষিক সমাবর্তন স্থগিত রেখেছে ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউটস অব ম্যানেজমেন্ট।  করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আজ শুক্রবার একদিনের বিশেষ বিধানসভা অধিবেশন ডেকেছে দিল্লি সরকার। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের নেতৃত্বে এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

করোনা আতঙ্কে বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্বের জন্য ভিসা স্থগিত করেছে শ্রীলঙ্কা। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত আর কাউকে ভিসা দেয়া হবে না বলে জানানো হয়েছে। তবে এ তালিকায় নেই সিঙ্গাপুর এবং মালদ্বীপ। শ্রীলঙ্কায় নিয়োজিত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রিয়াজ হামিদুল্লাহ গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বুধবার শ্রীলঙ্কা সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।  বৃহস্পতিবার তা সবাইকে জানিয়ে দেয়া হচ্ছে। এর আগে বুধবার সব ধরনের পর্যটক ভিসা স্থগিত করে প্রতিবেশী দেশ ভারত। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে আগামী ১৫ই এপ্রিল পর্যন্ত কূটনৈতিক, জাতিসংঘ বা আন্তর্জাতিক সংস্থা, চাকরি ও প্রজেক্ট ভিসা বাদে বিদ্যমান সব ধরনের ভিসা স্থগিত করেছে দেশটির সরকার।

এছাড়া করোনা ভাইরাস (কেভিড-১৯) আক্রান্ত রোগী পাওয়ার পর মালদ্বীপের সিভিল এভিয়েশন বাংলাদেশ থেকে যাত্রী পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। আগামী ২৪শে মার্চ পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে বলে জানিয়েছে সে দেশে অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশন। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ