ঢাকা, শুক্রবার 20 March 2020, ৬ চৈত্র ১৪২৬, ২৪ রজব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৯ হাজার ছাড়ালো 

 # চীনে নতুন কেউ আক্রান্ত হয়নি # ইতালিতে ২৬২৯ ডাক্তার নার্স করোনায় আক্রান্ত 

# মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত কংগ্রেসের দুই সদস্য # স্পেনে ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছে ২০৯ জন  

স্টাফ রিপোর্টার : বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসে এ পর্যন্ত ২ লাখ ২৭ হাজার ৭৪৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। সবশেষ তথ্যমতে এ ভাইরাসের ফলে সৃষ্ট কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে ৯ হাজার ২৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে এ রোগে আক্রান্ত হয়েও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যা বেশ বড়সড়। এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়ে ৮৫ হাজার ৯৮৫ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। করোনা ভাইরাসের সবশেষ তথ্য প্রকাশ করে এমন ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডমিটারস ডট ইনফোতে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। উল্লেখ্য, এসব সংখ্যা প্রতিনিয়তই বাড়ছে। 

ওয়ার্ল্ডমিটারের তথ্যমতে, এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখনও ভুগছেন এমন সংখ্যা ১ লাখ ৩২ হাজার ৪৭৫ জন। সুস্থ হয়ে ওঠেছেন বা মৃত্যু হয়েছে এমন অর্থাৎ ‘ক্লোজ কেস’-এর সংখ্যা ৯৫ হাজার ২৮৯ জন।

করোনা ভাইরাসে এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে চীনে। সেদেশের এ পর্যন্ত ৩ হাজার ২৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে চীনে আক্রান্ত হয়েছেন ৮০ হাজার ৯২৮ জন। উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশেই প্রথম এ ভাইরাসের অস্তিত্ব মেলে। এর পরপরই ওই প্রদেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে ভাইরাসটি। পরে বিশ্বের অন্যান্য দেশেও ছড়িয়ে পড়ে করোনা ভাইরাস।

চীনের পরেই সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী দেশ ইতালি। সেদেশে এ পর্যন্ত ২ হাজার ৯৭৮ জনের মৃত্যু হয়েছে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে। দেশটিতে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৩৫ হাজার ৭১৩ জন। ইতালিতে ২৬২৯ ডাক্তার নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। প্রতিদিনই সেদেশে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। বুধবার একদিনেই ইতালিতে মৃত্যু হয়েছে ৪৭৫ জনের। এ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে যে কোনো দেশে একদিন সর্বোচ্চ মৃত্যুর সংখ্যা এটিই।

আল জাজিরা জানাচ্ছে, ইতালিতে এ পর্যন্ত দুই হাজার ৬২৯ জন চিকিৎসক ও নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। দেশটিতে মোট করোনা রোগীর ৮ দশমিক ৩ শতাংশই এখন ডাক্তার ও নার্স। বুধবার রাতে ইতালির হেলথ ফাউন্ডেশন জানিয়েছে, এতো বেশি সংখ্যক চিকিৎসক ও নার্স করোনা আক্রান্ত হওয়ায় এটা প্রমাণিত হয় যে তাদের জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জামের যথেষ্ট অভাব রয়েছে। করোনা ভাইরাসের আক্রমেণে চীনেই সবচেয়ে বেশিসংখ্যক মানুষ মারা গেছে। কিন্তু সেখানে এত ডাক্তার বা নার্স আক্রান্ত হননি। জানা গেছে, গত আট দিনেই ১৫শ’ ডাক্তার-নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা ঠেকাতে পুরো ইতালিতেই লকডাউন ব্যবস্থা চলছে। আগামী এপ্রিল পর্যন্ত তা বলবৎ থাকবে। গত ২৪ ঘণ্টায় ইতালিতে সর্বোচ্চ ৪৭৫ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং চার হাজার ২০৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ১৭ জন। করোনা ভাইরাসে বুধবার একজনের মৃত্যু হয়। বাংলাদেশে কোভিড-১৯ রোগে মৃতের সংখ্যা ১। ভারতে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন, ১৯৭ জন ও মৃত্যু হয়েছে ৪ জনের। জাপানে আক্রান্ত হয়েছে ৯২৩ জন ও মৃত্যু হয়েছে ৩২ জনের। এছাড়া অস্ট্রিয়ায় এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৮৪৩ জন ও মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের। বেলজিয়ামে আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ৭৯৫ জন ও মৃতের সংখ্যা ২১ জন।

করোনা ভাইরাসে ইরানে ব্যাপক প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। সেদেশে এ পর্যন্ত ১ হাজার ২৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশটিতে এ পর্যন্ত ১৮ হাজার ৪০৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন। ইউরোপের অন্যান্য দেশের মধ্যে ইতালির পরই সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে স্পেন। দেশটিতে এ পর্যন্ত ১৭ হাজার ১৪৭ জন আক্রান্ত হয়েছে করোনা ভাইরাসে। মৃতের সংখ্যা ৭৬৭ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত হয়েছে ১৩ হাজার ৬৩২ জন। কোভিড-১৯- এ দেশটিতে প্রাণ গেছে ৩৩ জনের। এ ছাড়া ফ্রান্সে আক্রান্ত হয়েছেন ৯ হাজার ১৩৪ জন। সেদেশে মৃত্যু হয়েছে ২৬৪ জনের। এশিয়ার দেশ দক্ষিণ কোরিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৫৬৫ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৯১ জনের। সুইজারল্যান্ডে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯৩৯ জন ও প্রাণ গেছে ৩৬ জনের। নেদারল্যান্ডসে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৪৬০ জন ও মৃত্যু হয়েছে ৭৬ জনের।

এদিকে, যুক্তরাজ্যে ব্যাপক ছড়িয়ে পড়েছে এ ভাইরাস। করোনা ভাইরাসে এ পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬২৬ জন। দেশটিতে মারা গিয়েছেন ১০৮ জন। যুক্তরাষ্ট্রে এ ভাইরাসে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ৯ হাজার ৪৮৬ জন। দেশটিতে কোভিড-১৯ রোগে মৃত্যু হয়েছে ১৫৫ জনের।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রথমবারের মতো করোনা ভাইরাস সংক্রমণে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন দেশটির কংগ্রেসের দুই সদস্য। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়। মার্কিন কংগ্রেসের প্রতিনিধি সভায় ফ্লোরিডা থেকে নির্বাচিত রিপাবলিকান দলীয় মারিও ডিয়াজ-ব্যালার্ট এবং উটাহ থেকে নির্বাচিত ডেমোক্রেট সদস্য বেন ম্যাকঅ্যাডামস বর্তমানে ভাইরাস সংক্রমণে চিকিৎসাধীন আছেন বলে সংবাদে জানানো হয়।

বুধবার কংগ্রেস সদস্য মারিও ডিয়াজ ব্যালার্টের অফিস সূত্রে এক বিবৃতিতে জানানো হয়,জ্বর ও মাথা ব্যথার পরিপ্রেক্ষিতে তাকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় তার শরীরে ভাইরাস সংক্রমণের অস্তিত্ব পাওয়া যায়।

তবে তিনি কী ভাবে করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন সে বিষয়ে কিছু জানানো হয় নি। অন্য দিকে বুধবার কংগ্রেস সদস্য বেন ম্যাকঅ্যাডামস এক টুইটবার্তায় জানান, তিনিও করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। চিকিৎসকের পরামর্শে তিনি স্বেচ্ছায় নিজ বাড়িতে কোয়ারেন্টাইনে আছেন। এ দিকে মার্কিন কংগ্রেসের প্রতিনিধি সভার হুইপ স্টিভ স্ক্যালিস এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, তিনি স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টাইনে চলে যাচ্ছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে বর্তমানে ৯ হাজার ৪৩৯ জন করোনা ভাইরাস সংক্রমণে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত। এর মধ্যে ভাইরাস সংক্রমণে ১৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

করোনা মহামারিতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ইউরোপের দেশ স্পেন। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২০৯ জন মানুষ করোনা সংক্রমিত কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। দেশটিতে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে মোট মৃত্যুর সংখ্যা এখন ৭৬৭। স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ তথ্য দিয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাতে জানানো হয়েছে, গত ২৪ শুধু দুই শতাধিক মানুষের মৃত্যু নয় নতুন করে আরও প্রায় চার হাজার মানুষ দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গতকাল আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ হাজার ৭১৬ থাকলেও তা এখন ১৭ হাজার ১৪৭ জন।

এদিকে করোনা ভাইরাস মহামারি শুরুর পর চীনে প্রথমবারের মতো গত ২৪ ঘণ্টায় স্থানীয় পর্যায়ে নতুন করে সংক্রমণের সংখ্যা শূন্য। বৃহস্পতিবার দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের বরাত দিয়ে সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট এ তথ্য জানায়। চীনজুড়ে আরও ৩৪ জন কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হলেও তারা কেউ স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত হননি। তারা সবাই বিদেশফেরত। অপরদিকে, কোভিড-১৯ এর উৎসস্থল হুবেই প্রদেশে স্থানীয়ভাবে বা বিদেশ থেকে নতুন করে কেউ এ রোগে আক্রান্ত হননি। এ ছাড়া, মৃত্যুও একক সংখ্যায় নেমে এসেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় চীনে আট জন মারা গেছেন। সব মিলিয়ে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে মারা গেছেন ৩ হাজার ২৪৫ জন। এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮০ হাজার ৯২৮ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৭০ হাজার ৪২০ জন।

১০ জানুয়ারি থেকে দৈনিক হুবেই প্রদেশে ও ২০ জানুয়ারি থেকে চীনের মূল ভূখ-ে কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা জানাচ্ছে কমিশন।  

ইরানে আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ হাজার ৩৬১ এবং মারা গেছে ১ হাজার ১৩৫ জন। স্পেনে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ হাজার ৭৬৯ এবং মৃত্যু হয়েছে ৬৩৮ জনের। জার্মানিতে এই প্রাণঘাতী ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১২ হাজার ৩২৭ এবং মারা গেছে ২৮ জন। যুক্তরাষ্ট্রে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ হাজার ৩৭১ এবং মৃত্যু হয়েছে ১৫৩ জনের। ফ্রান্সে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ হাজার ১৩৪ এবং মারা গেছে ২৬৪ জন। দক্ষিণ কোরিয়ায় এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮ হাজার ৫৬৫ এবং মৃত্যু হয়েছে ৯১ জনের। সুইজারল্যান্ডে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ হাজার ১১৫ এবং মারা গেছে ৩৩ জন। যুক্তরাজ্যে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ২ হাজার ৬২৬ জন এবং মারা গেছে ১০৪ জন। নেদারল্যান্ডে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ৫১ এবং মৃত্যু ৫৮, অস্ট্রিয়ায় আক্রান্ত ১ হাজার ৬৪৬ এবং মৃত্যু ৪, নরওয়েতে মোট আক্রান্ত ১ হাজার ৫৯১ এবং মারা গেছে ৬ জন। বেলজিয়ামে আক্রান্ত ১ হাজার ৪৮৬ এবং মারা গেছে ১৪ জন। সুইডেনে আক্রান্ত ১ হাজার ৩০১ এবং মারা গেছে ১০ জন। জাপানে আক্রান্ত ৯১৪ এবং মারা গেছে ২৯ জন। মালয়েশিয়ায় আক্রান্ত ৭৯০ এবং মৃত্য ২।

অস্ট্রেলিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫৯৬ এবং মারা গেছে ৬ জন। কাতারে আক্রান্তের সংখ্যা ৪৫২ এবং সিঙ্গাপুরে ৩১৩, পাকিস্তানে আক্রান্ত ৩০৭ এবং মারা গেছে ২ জন, সৌদি আরবে আক্রান্ত ২৩৮, ফিলিপাইনে আক্রান্ত ২০২ এবং মারা গেছে ১৭ জন। ভারতে আক্রান্ত ১৬৯ এবং মৃত্যু ৩। অপরদিকে ইরাকে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬৪ এবং মৃত্যু ১২, কুয়েতে আক্রান্ত ১৪২, আরব আমিরাতে ১১৩, ওমানে ৩৯, বাংলাদেশে নতুন করে আক্রান্ত ৪। ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৭। এ ছাড়া এখন পর্যন্ত দেশটিতে একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৩ জন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ