ঢাকা, সোমবার 23 March 2020, ৯ চৈত্র ১৪২৬, ২৭ রজব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

স্বাধীনতার মাস

স্টাফ রিপোর্টার : আজ সোমবার ২৩ মার্চ। ১৯৭১ সালের এই দিনটি বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি মাইলফলক। এদিনটিতে কেবল পাকিস্তানী সৈন্যদের আবাসস্থল ক্যান্টনমেন্টগুলো ছাড়া আর কোথাও পাকিস্তানের পতাকা ওড়েনি। এমনকি পূর্ব পাকিস্তান টেলিভিশনেও পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা প্রদর্শিত হয়নি। সচিবালয়সহ সকল সরকারি অফিসেও বাংলাদেশের পতাকাই পত্ পত্ করে উড়েছে। পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবসে শতকরা ৫৬ ভাগ জনঅধ্যুষিত পূর্ব বাংলার জনগণ পাকিস্তানকে সম্পূণরূপে বাতিল করে দিয়ে স্বাধীনতার প্রশ্নে তাদের দৃঢ়চেতা মনোভাবকেই জানান দিলো।
 বিশিষ্ট নজরুল গবেষক অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম’ গ্রন্থে বর্ণিত হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ বাংলাদেশের সর্বত্র, এমনকি বাসাবাড়ির ছাদে, গাছে, রাস্তায়, যানবাহনে, যার যেখানে সম্ভব হয়েছে, সেখানেই প্রতিবাদস্বরূপ কালো পতাকা উত্তোলন করেছে। মুক্তিকামী বাঙালী সেই সঙ্গে স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকাও প্রদর্শন করেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ২৩ মার্চ পাকিস্তানের জাতীয় দিবসের দিন বাংলাদেশের সর্বত্র পাকিস্তানের জাতীয় পতাকার পরিবর্তে কালো পতাকা প্রদর্শনের নির্দেশ দিলে বাঙালী সে নির্দেশের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বাসাবাড়িতে কালো পতাকা এবং সেই সাথে সোনার বাংলার জাতীয় পতাকাও প্রদর্শন করে। ওই দিন সর্বত্র কালো পতাকা আর জাতীয় পতাকা উত্তোলনের অভূতপূর্ব দৃশ্য এদেশে আর কখনও দেখা যায়নি। বঙ্গবন্ধুর বাসভবনেও সেদিন ‘স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় শ্রমিক পরিষদ’ এর নেতৃবৃন্দ আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করেন। উল্লেখ্য, লেখক ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন ও ’৭১-এর মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন এবং মুক্তিযুদ্ধকালীন পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর বন্দিশিবিরে নির্যাতিত হন।
ইতিহাসের পাতা থেকে জানা যায়, রাজধানী ঢাকা এদিন আবেগাপ্লুত অযুত জনতার মিছিলে ঊর্মিমুখর। ভোর রাতে পাকিস্তানী সৈন্যরা রাস্তায় তাদের টহলদান জোরদার করাসহ বিভিন্ন কর্মপন্থা গ্রহণ করবে বলে আগের দিন আশঙ্কা করা হয়েছিল। তা না হওয়ায় জনতার প্রাণচাঞ্চল্য এবং আত্মবিশ্বাস আরো বেড়ে গিয়েছিল। তাই এতো মিছিল। প্রায় প্রতিটি মিছিলের সামনে এসেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেশ উৎফুল্ল, অথচ দৃঢ়তার সাথেই একটি কথা বার বার বলেছিলেন, সংগ্রাম আর স্বাধীনতা আমার জীবনের মূলমন্ত্র। সংগ্রাম করে, যুদ্ধ করেই দেশ স্বাধীন করতে হবে। বেলা তিনটা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত মিছিল কিছুটা কমে আসে। সে সময় শেখ মুজিব তার বাসভবনে উপস্থিত দেড় শতাধিক দেশী-বিদেশী সাংবাদিকের সাথে লনে বসে কথাবার্তা বলেন। বিকেল পাঁচটায় আবার মিছিলের ঢল নামে এবং তা প্রায় রাত ৯টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। এ সময় উৎফুল্ল জনতার মাঝে স্বাধীন বাংলার পতাকা তুলে ধরেন বঙ্গবন্ধু।
এদিনও খান আবদুল ওয়ালী খান, মিয়া মমতাজ দওলতানা, এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আসগর খান, মাওলানা শাহ আহমদ নূরানী ও পশ্চিম পাকিস্তান আওয়ামী লীগের নেতা গোলাম মোহাম্মদ খান লুন্দখোর প্রমুখ পশ্চিম পাকিস্তানী নেতা এবং অধ্যাপক মোজাফফর আহমদসহ ক’জন বাঙালি নেতা শেখ মুজিবের সাথে সাক্ষাৎ করেন। দুপুর সাড়ে ১২টায় নিজ বাসভবনের সামনে আগত মিছিলের উদ্দেশে শেখ মুজিব বলেন, আমি শান্তিপূর্ণভাবে সংগ্রাম চালিয়ে যেতে চাই। প্রয়োজনে রক্ত দিতে প্রস্তুুত। সাড়ে সাত কোটির একটি আত্মা জীবিত থাকতেও দাবি আদায়ের সংগ্রাম চলবে। ঢাকা পতাকার নগরীতে পরিণত হয়। শহরের প্রতিটি যানবাহন, দোকানপাট, সরকারি, আধাসরকারি-বেসরকারি ভবনে স্বাধীন বাংলার পতাকা শোভা পায়। সুপ্রিমকোর্ট, হাইকোর্ট, বেতার কেন্দ্র, বিএনআর, জিপিও ভবন এবং কতিপয় দূতাবাসেও পতাকা উত্তোলন করা হয়। স্বাধীন বাংলার পতাকার সাথে সাথে প্রতিরোধ দিবসের কালো পতাকাও ঘরে ঘরে উত্তোলন করা হয়। পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) প্রধান জুলফিকার আলী ভুট্টোর অবস্থানকালে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালেও (বর্তমানে সংস্কার কাজ চলায় বাণিজ্যিক কার্যক্রম বন্ধ থাকা হোটেল রূপসী বাংলা) স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করা হয়।
প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে ‘জয় বাংলা বাহিনী’ পল্টন ময়দানে কুচকাওয়াজ করে। ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’ জাতীয় সঙ্গীত ও বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে কুচকাওয়াজ শুরু হয়। দুপুর বারোটায় রৌদ্রোজ্জ্বল পরিবেশে শেখ মুজিব জয় বাংলা বাহিনীর আনুষ্ঠানিক অভিবাদন গ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশের পতাকা আন্দোলিত করে এবং গণবাহিনীকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, সাড়ে সাত কোটি মানুষের দাবির প্রশ্নে আপোষ নেই। স্বাধীন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ ও স্বাধীন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের যৌথ উদ্যোগে বায়তুল মোকাররম মসজিদে এক গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন ছাত্রনেতা আ স ম আব্দুর রব, আবদুল কুদ্দুস মাখন, নূরে আলম সিদ্দিকী প্রমুখ। মুহুর্মুহু ‘জয় বাংলা’ ধ্বনির মধ্যে শ্রমিক ও ছাত্র নেতৃবৃন্দ ঘোষণা করেন, আমরা বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উড়িয়ে দিয়েছি, কাজেই যে পতাকা আমরা প্রত্যাখান করেছি, তা পুনরায় তোলা বা স্বাধীনতা থেকে পিছপা হওয়া আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই যে কোন কিছুর বিনিময়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা রক্ষা করাই আজ সাড়ে সাত কোটি বাঙালীর পবিত্র কর্তব্য।
এছাড়া পশ্চিম পাকিস্তানের ৬ জন পার্লামেন্টারি নেতা এদিন বিকেলে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাসভবনে শেখ মুজিবের সাথে দেখা করেন। দেড় ঘণ্টাব্যাপী আলোচনা চলে। বৈঠকের পর অন্যতম নেতা মিয়া মমতাজ দওলতানা অপেক্ষমান সাংবাদিকদের বলেন, দেশের বর্তমান রাজনৈতিক সঙ্কট নিয়ে অলোচনা হয়েছে এবং শেখ মুজিব ও পশ্চিম পাকিস্তানী নেতাদের আলোচনায় অগ্রগতি ঘটেছে।
এদিকে রণপ্রস্তুুতির ষড়যন্ত্রের জাল বুনতে প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান এদিন বেলা সাড়ে ১১টায় কুর্মিটোলা সেনানিবাসে যান কঠোর সেনা প্রহরায়। গত ১৫ মার্চ ঢাকা আগমনের পর প্রথমবারের মতো প্রেসিডেন্ট হাউজের বাইরে সেনানিবাসে যান তিনি। প্রায় সাড়ে চার ঘণ্টা অবস্থানের পর জেনারেল ইয়াহিয়া সেনানিবাস ত্যাগ করে স্বীয় ভবনে প্রত্যাবর্তন করেন। পিপিপি প্রধান জুলফিকার আলী ভুট্টো প্রেসিডেন্ট হাউজে লে. জেনারেল পীরজাদার সাথে ৭৫ মিনিট আর দলীয় লোকদের সাথে গভীর রাত পর্যন্ত পৃথকভাবে বৈঠক করেন।
২০১৪ সালে স্বাধীনতা পুরস্কারপ্রাপ্ত লে. কর্নেল (অব.) আবু ওসমান চৌধুরী তার ‘এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১’ শীর্ষক গ্রন্থে বর্ণনা করেন, “২৩ মার্চ স্বাধীন বাংলাদেশে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহবানে সাড়া দিয়ে সারা দেশে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়। কালো পতাকার পাশাপাশি সবুজ জমিনে লাল সূর্যের মাঝে সোনালী রং এবং বাংলাদেশের মানচিত্র অঙ্কিত নতুন স্বাধীন বাংলার পতাকাও উড়তে দেখা যায় ঘরের শীর্ষে, সরকারি অফিস, আদালত, হাইকোর্ট, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল, বিদেশী দূতাবাস সর্বত্রই স্বাধীন বাংলার পতাকা উড়তে দেখা গেল। ছাত্রলীগের জঙ্গি কর্মীদের দ্বারা গঠিত ‘জয়বাংলা বাহিনী’ এইদিন পল্টন ময়দানে আনুষ্ঠানিকভাবে পতাকা উত্তোলন করে কুচকাওয়াজ প্রদর্শন ও সালাম প্রদান করে। সেদিন প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার নির্ধারিত বেতার ভাষণ বাতিল করা হয় এবং প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টার সাথে আওয়ামীলীগের অন্যান্য নেতৃবর্গের দুই দফা বৈঠক হয়। সেদিন ইপিআর বাহিনীর যশোর সেক্টর হেড কোয়ার্টার, বিভিন্ন দফতর ও বিওপিতেও বাংলাদেশের পতাকা উড়তে দেখা যায়। ইপিআর সদর দফতর পিলখানার কয়েকজন দুঃসাহসী সৈনিক রাতে গোপনে প্যারেড গ্রাউন্ডের বটবৃক্ষের শীর্ষে স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করেন। পতাকা উত্তোলনকে কেন্দ্র করে সর্বত্র গুরুতর প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয় এবং পরবর্তীতে ইপিআর বাহিনীর সংশ্লিষ্ট কয়েকজনকে পাকিস্তানীদের নির্মম বুলেট ও বেয়নেটের শিকার হতে হয়। সৈয়দপুর, মিরপুর, পাহাড়তলী ইত্যাদি জায়গায় অবাঙালীরা সেনাবাহিনীর সমর্থনপুষ্ট হয়ে বাঙালীদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। বাঙালিরা রুখে দাঁড়ালে সেনাবাহিনী তড়িৎগতিতে ঘটনাস্থলে এসে গুলী চালায়। গুলীতে সেদিন কমপক্ষে ৫০ জন নিহত ও কয়েকশ’ ব্যক্তি আহত হয়।”

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ