ঢাকা, মঙ্গলবার 24 March 2020, ১০ চৈত্র ১৪২৬, ২৮ রজব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

সরকারের দায়িত্বহীনতায় মহাদুর্যোগ ধেয়ে আসছে -রিজভী

গতকাল সোমবার নয়াপল্টন বিএনপি অফিসের সামনে ড্যাব ঢাকা মহানগরী উত্তরের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির লক্ষ্যে সচেতনতামূলক সামগ্রী বিতরণ করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা ভাইরাস সংক্রমণ থেকে রক্ষায় বিনামূল্যে ‘মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার’ বিতরণ করেছে বিএনপি। গতকাল সোমবার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কের আশপাশে বিএনপির চিকিৎসক সংগঠন ‘ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ড্যাব’ এর উদ্যোগে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এসব সামগ্রি বিতরণ করেন।
রিজভী বলেন, আমরা একটা ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছি। শতাব্দীর পর এতো বড় এক মহাদুযোর্গ এই পৃথিবীতে আসেনি। ব্এিনপি মানুষের পক্ষে, জনগণের পক্ষে কাজ করে, এই দুযোর্গে যতটুকু সম্ভব এবং যেভাবে সম্ভব তাদের পাশে দাঁড়ানো- এটা বিএনপি গঠনের মূল লক্ষ্য। সেই লক্ষ্যকে ধারণ করে যারা জাতীয়তাবাদী চিন্তা-চেতনায় বিশ্বাসী, যারা শহীদ জিয়াউর রহমানের গণতন্ত্র এবং জাতীয়তাবাদী দর্শনে আলোকিত-আমাদের চিকিৎসক সমাজ আজকে মহান ব্রত নিয়ে সাধ্যমতো মানুষের কাছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং মাস্ক বিতরণ করছেন।
রিজভী অভিযোগ করে বলেন, আমরা মনে করি, এই দুযোর্গময় পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য সরকারের যে দায়-দায়িত্ব পালন করার কথা ছিলো সেটা তারা পালন করেনি। পালন করেনি বলেই এক মহাদুর্যোগ ধেয়ে আসার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।
তিনি বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে অনেক বিষয় গোপন করা হয়েছে। আজকে কোনটা নিউমোনিয়া, কোনটা করোনা পজেটিভ এটা নির্ণয় করতে পারছে না ডাক্তাররা। কারণ সেই প্রস্তুতি তারা আগে থেকে নেয়নি। এই সরকার ভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকার কারণে আজকে লাখ লাখ মানুষ বিভিন্ন সমুদ্র বন্দর দিয়ে, এয়ারপোর্ট দিয়ে দেশে ঢুকেছে। সেই সময়ে তাদের করোনা সনাক্তকরণ করার দরকার ছিলো সেটা তারা করেনি।
রিজভী বলেন, এখন সরকার কি করছেন? হাতের মধ্যে একটা সিল দিয়ে বলছেন-সেলফ কোয়ারেইনটাইন। এটা পৃথিবীর কোনো দেশে শুনেছেন-এভাবে সিল মেরে সেলফ কোয়ারেইটাইনের কথা। এটা কোনো দেশে করেনি। এক গোসলেই যে সিল হাতে দেয়া হচ্ছে- তা উঠে যাচ্ছে। তিনি বলেন, সেলফ কোয়ারেন্টাইন করে রোগী বাড়িতে থাকবে। তাহলে তো বাড়ির অন্যান্য সদস্যরা আক্রান্ত হবে। রোগীর ভাই-বোন, তার আত্বীয়-স্বজন আক্রান্ত হবে। তারা যখন বাজারে আসবে সেখানকার লোকজন এ্যাফেক্টটেড হবে। এইরকম দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দিয়েছেন সরকার।
এদিকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের বিস্তাররোধে জনসমাগম এড়াতে অনলাইনে প্রেস কনফারেন্সসহ অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালনার চিন্তা করছে বিএনপি। জনসমাগম যেখানে এড়িয়ে চলার কথা বলা হচ্ছে, সেখানে এতোগুলো মানুষ নিয়ে দাড়িয়ে বক্তৃতা দেওয়া কী ঝুঁকিপূর্ণ নয়? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, আমারা কিন্তু পাচঁশ’ বা একশ’ লোক নিয়ে কিছু করছি না। ডাক্তারা এখানে আসছেন। ফাঁকা ফাঁকা হয়ে দাঁড়িয়েছি। এখন যে অবস্থা আমার মনে হয় এটা করা যায়। আপনারা পাশাপাশি এখনও দাঁড়িয়ে আছেন, এতে কী অন্যদের ঝুঁকি বাড়ছে না? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অন্যদের ঝুঁকি যাতে না বাড়ে, সেজন্য আমরা প্রোটেকশন নিয়েছি। ডাক্তাররা আমাদের বলেছেন, কীভাবে কী করতে হবে। সামনে আমাদের ডিজিটাল কনফারেন্স করার পরিকল্পনা আছে। আমরা চিন্তা করছি। এ বিষয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব।
‘করোনা ভাইরাসের চেয়ে আওয়ামী লীগ শক্তিশালী’ ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের জবাবে রিজভী বলেন, আপনারা মিথ্যা কথা বলায় শক্তিশালী, মানুষকে বিপর্যয়ে ফেলে দিতে শক্তিশালী, মানুষকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিতে শক্তিশালী, মুখে চাপাবাজি করতে শক্তিশালী। কিন্তু সঠিক সময়ে মানুষের দুর্যোগ মোকাবিলা করতে আপনারা শক্তিশালী নন। কারণ যারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়, তারা পদক্ষেপ নেয় না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ