ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 March 2020, ১২ চৈত্র ১৪২৬, ৩০ রজব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

মিষ্টির দোকান ও মিল্ক ভিটার কারখানা সচল রাখার দাবি

মিষ্টির দোকান ও বাংলাদেশ দুগ্ধ উৎপাদনকারী সমবায় লিমিটেডের (মিল্ক ভিটা) কারখানা সচল রাখার দাবি জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় ডেইরি ফার্মারস এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ। ২৫ মার্চ (বুধবার) চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ এনডিসির সঙ্গে সাক্ষাত ও স্মারকলিপি প্রদানকালে এ দাবি জানান। করোনা ভাইরাসের কারণে চট্টগ্রাম নগরী ছাড়াও পটিয়া, কর্ণফুলীসহ বিভিন্ন এলাকার দেড় হাজার দুগ্ধ খামারী বিপাকে পড়েছেন। ইতোমধ্যে মিল্ক ভিটা দুধ সংগ্রহ বন্ধ করে দিয়েছে। তাছাড়া গোখাদ্যের দাম বৃদ্ধি ও মিষ্টির দোকান বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে মূলত খামারীরা ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন। খামারীদের উৎপাদিত দুধ বিভিন্ন মিষ্টির দোকান, মিল্ক ভিটা ছাড়াও মানুষের নিত্যদিনের খাবার ছিল। মানুষের খাদ্যের পুষ্টি নিশ্চিত করতে গরুর দুধ ভুমিকা রাখে। কিন্তু করোনার ইস্যুতে দুধ সংগ্রহ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। মিল্ক ভিটার কারখানা চালু রেখে প্রান্তিক খামারীদের থেকে অধিক দুধ সংগ্রহ, সরকারিভাবে ঘোষিত বন্ধের সময় খামারীদের উৎপাদিত দুধ (শিশু খাদ্য) বাজারজাত ও বিতরন করার সুযোগ প্রদান, ডেইরী শিল্পকে ঠিকে রাখতে গো-খাদ্যের দোকান খোলা রাখা ও গো-খাদ্যের উচ্চমূল্য বিক্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ ছাড়াও বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋনের কিস্তি নুন্যতম তিন মাস বন্ধ রাখার দাবি জানান। চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে খামারীরা স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। চট্টগ্রাম বিভাগীয় ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের সভাপতি মো. ইকবাল হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক ও মিল্ক ভিটার চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক মো. নাজিম উদ্দিন হায়দার, চট্টগ্রাম ডেইরি এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মালিক মো. ওমর (বাবু), সাংগঠনিক সম্পাদক প্রান্তিক খামারী মো. জালাল উদ্দিন রোকন, খামারী মাকসুদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। 
মিল্ক ভিটার চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন হায়দার জানিয়েছেন, খামারীদের গরুর দুধ ইতোমধ্যে বাজারজাত বন্ধ হয়ে গেছে। যার কারণে চট্টগ্রামে দেড় হাজার দুগ্ধ খামারী বিপাকে পড়েছেন। খামারীদের উৎপাদিত দুধ বিভিন্ন মিষ্টির দোকান, মিল্ক ভিটা ছাড়াও মানুষের নিত্যদিনের খাবার ছিল। এটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। শিশু খাদ্য দুধ বাজারজাত পুনরায় স্বাভাবিক রাখতে খামারীরা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।  প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ