রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সকল অপকর্ম ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়ে যাবে -রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার: অশুভ ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ক্ষমতাসীন আ্ওয়ামী লীগ দলের নেতাকর্মীদের গণহারে গ্রেফতার করছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। গতকাল বুধবার দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই কথা বলেন। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া আদালতে আসা যাওয়াকে কেন্দ্র কওে প্রতিদিন বিএনপির অসংখ্য নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করছে। এছাড়া নেতাকর্মীদের বাসায় তল্লাশীর নামে ভাংচুর চালাচ্ছে। বাসা তছনছ করছে।
বেগম জিয়ার গুলশানের বাসার সামনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্য  মোতায়েন করা করাকে দুরভীসন্ধিমূলক আখ্যা দিয়ে রিজভী বলেন, সরকার সর্বত্র একটি ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করছে। বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য বেগম রাজিয়া আলিমসহ শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এছাড়াও গতকাল প্রায় ৫০ জনের অধিক নেতাকর্মী পুলিশের বেধড়ক লাঠিচার্জে আহত হয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকে পুলিশের এই ন্যাক্কারজনক ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের নি:শর্ত মুক্তির জোর দাবি করছি। আহত নেতাকর্মীদের আশু সুস্থতা কামনা করছি।
গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে গ্রেফতার প্রসঙ্গে রিজভী বলেন, দলের স্থায়ী কমিটিরি সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে ডিবি পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। একজন রাজনীতিবিদকে এভাবে রাস্তা থেকে তুলে নেয়া যাওয়ার ঘটনা সভ্য রাষ্ট্রে নজিরবিহীন ঘটনা। এটা একটি সরকারের ভয়ংকর গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ বিশেষ। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। তিনি বলেন, আগামী ৮ ফেব্রুয়ারিকে সামনে রেখে সরকার এক অশুভ পরিকল্পনার নিয়ে এগুচ্ছে। গোটা জাতি জানে এক ভয়ংকর মিথ্যাচার ও সাজানো রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে মামলায় চূড়ান্ত পর্য়ায়ে নিয়ে এসেছে। সারাদেশের মানুষ এ নিয়ে উদ্বিগ্ন। এই সময়ে বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের মতো একজন রাজনীতিবিদকে গ্রেপ্তার সরকারের ভয়ংকর অশুভ পরিকল্পনার অংশ। সরকারের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, এটি আপনাদের শেষ মরণ কামড়। এই মরণ কামড় দিয়ে আপনাদের কোনো লাভ হবে না। আপনাদের সকল অপকর্ম, অপচিন্তা এবং অপপরিকল্পনা এদেশের জনগন ব্যর্থ করে দেবো।
তিনি বলেন, আপনারা মনে করেছেন যে, এভাবে গ্রেপ্তার করে দেশের মানুষ ও জাতীয়তাবাদী শক্তি ভয় পেয়ে যাবে, আতঙ্কগ্রস্ত হবে। বরং এই গ্রেপ্তার ও রাস্তা থেকে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার মধ্য দিয়ে গোটা দেশে আরো বেশি ক্ষোভে-বিক্ষোভে ফেটে পড়বে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ