বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

মির্জা ফখরুলের স্ত্রী-কন্যা’র উপর হামলা চেষ্টার অভিযোগ

ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা : ঠাকুরগাঁওয়ে পাল্টা পাল্টি সাংবাদিক সম্মেলন করেছে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ। বুধবার বেলা ১২টায় শহরের কালিবাড়িস্থ মির্জা ফখরুল ইসলামের বাসভবনে সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে জেলা বিএনপি। এ সময় মির্জা ফখরুলের স্ত্রী রাহাত আরা সাংবাদিকদরে অভিযোগ করে বলেন, সাংবাদিক সম্মেলনে আসার আগে তিনি ও তার মেয়ে মির্জা শামারুহ শহরের বসিরপাড়ায় ধানের শীষের গণসংযোগে যান। এ সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ রাম দা ও চাপাতি নিয়ে তাদের উপর হামলার চেষ্টা করে এবং অনেকক্ষণ তাদের ঘিরে রাখে। পরে সংবাদ পেয়ে মির্জা ফখরুলের ছোট ভাই ও ঠাকুরগাঁও পৌর মেয়রসহ বিএনপি নেতাকর্মীরা গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। তবে মির্জা ফখরুলের স্ত্রী-কন্যা অক্ষত রয়েছেন।
এর আগে জেলা বিএনপির সভাপতি  ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান তৈমুর রহমান লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। তিনি বলেন, “নির্বাচন কমিশিন ও পুলিশ সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন যা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ও অনাকাক্সিক্ষত। তিনি আরো বলেন, সদর উপজেলার বেগুনবাড়ি ইউনিয়নে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা বনি আমিনের নেতৃত্বে মির্জা ফখরুলের গাড়ি বহরে হামলা চালানো হয়। এ ঘটনায় থানায় এজাহার দিলেও তা নথিভুক্ত হয়নি এবং রিটার্নিং অফিসার বরাবর অভিযোগ করলেও কোন প্রতিকার মিলেনি। ঘটনার পরপরই বিএনপি নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে। জগন্নাথপুর ইউনিয়নে ধানের শীষের গণসংযোগকালে সাবেক চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান লিটনের মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেয়া আওয়ামী লীগ। পরে স্থানীয় এক সংখ্যালঘু পরিবারে ঘর পোড়ানোর অভিযোগ এনে তাকেসহ নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। এছাড়া সদর উপজেলার মোহাম্মদপুর, বেগুনবাড়ি, আখানগর, রাজাগাও, সালন্দর, রহিমানপুর, চিলারং, জগন্নাথপুর, নারগুন, রহিয়াসহ নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি ইউনিয়নে আমাদের নির্বাচনী ক্যাম্প, নেতাকর্মীদের ঘরবাড়ি ভাংচুর অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটছে। প্রতিবারই অভিযোগ দিয়ে কোন ফল পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া নৌকা প্রতীকের লোকজন সম্পূর্ণ নির্বাচনী এলাকায় ভয়-ভীতি এবং আতংক সৃষ্টির মাধ্যমে এক ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছে। প্রশাসন সব কিছু জানার পরও নীরব ভূমিকার মাধ্যমে নজিরবীহিন পক্ষপাতিত্ব করে চলেছে। তিনি আরো উল্লেখ করেন, সুপরিকল্পিতভাবে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ঘর-বাড়িতে আগুন লাগিয়ে নির্বাচনকে প্রভাবিত করার জন্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অশুভ চক্রান্ত করা হচ্ছে। সাধারণ ভোটাররা চরম আতঙ্কে ভোট কেন্দ্রে যেতে আশঙ্কা প্রকাশ করছে।”
এদিকে একই দিন বেলা দুইটায় আওয়ামী লীগের পক্ষ হতে পাল্টা সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। স্থানীয় সাংসদ রমেশ চন্দ্র সেন এর কলেজ পাড়াস্থ বাসায় এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন রমেশ চন্দ্র সেন। তিনি বিএনপি’র পক্ষথেকে করা অভিযোগ অস্বীকার করে পাল্টা বিএনপির উপর অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন জায়গায় বিএনপির লোকজন আওয়ামী লীগের অফিস ভাংচুর, নেতাকর্মীদের উপর হামলা ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর হামলা করছে।”

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ