বুধবার ০৮ জুলাই ২০২০
Online Edition

খালেদা জিয়ার কারাভোগের এক বছর আজ 

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কারাবাসের এক বছর পূর্ণ হলো আজ। ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদ- দেন মাদরাসা ই আলিয়া মাঠে স্থাপিত বিশেষ আদালত। কারাগারে থাকা অবস্থায় এই মামলায় উচ্চ আদালত তার সাজা আরো পাঁচ বছর বাড়িয়ে ১০ বছর করে। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের আরেকটি মামলায় তার সাজা হয়েছে সাত বছর। যে মামলায় খালেদা জিয়া কারাগারে আছেন, সেটিতে গ্রেফতারের দেড় মাসের মাথায় জামিন মিললেও তার মুক্তির পথে বাদ সেধেছে আরো ৩৫ মামলা। একটি মামলায় জামিন হলে, অন্য মামলা সামনে আসছে। এ ভাবেই পার হয়ে গেছে এক বছর।

খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বলছেন, বিচার বিভাগের ওপর হস্তক্ষেপের কারণে খালেদা জিয়ার ন্যায় বিচার হচ্ছে না। খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেয়া হয়েছে। অবিলম্বে তাকে মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় আইনজীবীদের সঙ্গে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। মোসলেম উদ্দীন বলেন, মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে রাখা হয়েছে। তাকে মুক্তি দিয়ে প্রমাণ করুন দেশে গণতন্ত্র আছে।

গতকাল বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন, তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, গণমানুষের নেত্রী, গণতন্ত্রের প্রতীক ও ‘গণতন্ত্রের মা’ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে প্রতিহিংসা পূরণের সাজা দেয়ার এক বছর পূর্ণ হলো। চরম অবিচার আর অন্যায়ের আঘাতে বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী করা হয়েছে। এটি ছিল রাজনৈতিক প্রতিহিংসার সাজা। এক ব্যক্তির অত্যুগ্র ক্ষমতাক্ষুধা চরিতার্থ করতেই গণতন্ত্রকে চূড়ান্তভাবে কবরস্থ করার জন্য বেগম জিয়াকে কারাবন্দী করা হয়েছে। একজন তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে এক বছর কারাগারে রাখার নজীর পৃথিবীর কোথাও নেই। এটি অপরিসীম জনপ্রিয় জাতীয়তাবাদী নেত্রীর বিরুদ্ধে দেশী-বিদেশী শক্তির নিষ্ঠুর প্রতিশোধের খেলা। বেগম জিয়ার মুক্তি আইন ও বিচারের ওপর নির্ভরশীল নয়, এটি নির্ভরশীল শেখ হাসিনার মর্জির ওপর। সুতরাং আইন আদালতকে প্রভাবিত করেই বেগম জিয়াকে বন্দী করে রাখা হয়েছে। আমরা এই মুহূর্তে তাঁর নিঃশর্ত মুক্তি চাই।

এদিকে ‘গণতন্ত্রের মা’ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি ও সারাদেশে বিএনপি’র বন্দী নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে আজ শুক্রবার বেলা ২-৩০টায় কেবলমাত্র ঢাকায় রমনাস্থ ইন্সটিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ার্স-বাংলাদেশ মিলনায়তনে বিএনপি’র উদ্যোগে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালিত হবে। এছাড়া ৯ ফেব্রুয়ারী দেশব্যাপী একই দাবিতে ঢাকা মহানগরী বাদে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালিত হবে। 

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে দুদিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ‘গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়া মুক্তি আইনজীবী আন্দোলনের’ কেন্দ্রীয় কমিটি।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আজ শুক্রবার দেশব্যাপী মসজিদে জুমার নামাজে দোয়া এবং রোববার জাতীয় প্রেসক্লাব সম্মুখে সকাল ১১টায় আইনজীবীদের ‘কারামুক্তি বন্ধন’ কর্মসূচি।

বৃহস্পতিবার বিকালে গণমাধমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ কর্মসূচির কথা জানান সংগঠনের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, কো-চেয়ারম্যান এডভোকেট আবেদ রাজা ও মহাসচিব এবিএম রফিকুল হক তালুকদার রাজা। বিবৃতিতে কর্মসূচি সফল করার জন্য আইনজীবীদের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ