বুধবার ০৮ জুলাই ২০২০
Online Edition

বিপিএলো উদ্বোধনী ম্যাচে নিজেদের মাঠে বসুন্ধরা কিংস’র জয় বসুন্ধরা-১-উত্তর বারিধারা ক্লাব-০

নীলফামারী সংবাদদাতা : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) ফুটবলের উদ্বোধনী খেলায় নীলফামারীর শেখ কামাল স্টেডিয়ামে গতকাল বৃহস্পতিবার উত্তর বারিধারা ক্লাবের বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় পেয়েছে স্বাধীনতা কাপ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস। 

বিকেল ৩টা ১৫ মিনিটে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে খেলার উদ্বোধন করেন নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী। এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এলিনা আকতার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবিএম আতিকুর রহমান, জেলা ক্রীড়া অফিসার আবুল হোসেন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আরিফ হোসেন মুন সহ বসুন্ধরা কিংসের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

খেলা শুরু হওয়ার পর থেকে আক্রমণ, পাল্টা আক্রমণের মধ্য দিয়ে দু’দলেই একটি উপভোগ্য ফুটবল ম্যাচ উপহার দেয় দর্শকদের। এসময় দর্শকদের মুহুর্মুহু করতালিতে মুখরিত হয়ে উঠে পুরো স্টেডিয়াম। প্রথমার্ধের খেলায় কোন দলেই কাক্সিক্ষত গোলের দেখা পায়নি। তবে বেশ কয়েকটি সম্ভাবনাময় সুযোগ হাতছাড়া করেন উভয় দলেই।

বিরতির পর আক্রমাত্মক খেলতে থাকে বসুন্ধরা কিংস। গোলের জন্য মরিয়া হয়ে একের পর এক আঘাত হানতে থাকে বারিধারার শিবিরে। ৪৬ মিনিটে আর্জেন্টনার ফুটবলার নাইকোলেস ড্যালমন্টের ডি-বক্সের সামনে থেকে একটি লম্বা শর্ট অল্পের জন্য গোল হওয়া থেকে রক্ষা পায় বারিধারা। ৭০ মিনিটে বারিধারার ফাউল থেকে ফ্রি শর্ট পায় বসুন্ধরা কিংস। বারিধারা ক্লাবের ডি-বক্সের সামনে থেকে ফ্রি শর্ট টি নেন বসুন্ধরার কোস্টারিকার ফুটবলার কলিনড্রেস। কলিনড্রেসের জোড়ালো শর্টটি বারিধারা ক্লাবের গোল বারে লেগে সে যাত্রাও রক্ষা পায় ক্লাবটি। এভাবে বসুন্ধরা একের পর এক আক্রমনে কোনঠাসা করে ফেলে উত্তর বারিধারা ক্লাবকে। অবশেষে ৮৭ মিনিটে কাঙ্খিত গোলের দেখা পায় বসুন্ধরা কিংস। বারিধারার গোলবারের বাম দিক থেকে ডি-বক্সের ভিতরে বল পান বসুন্ধরার কিরগিজ ফুটবলার বখতিয়ার। সেখান থেকে বখতিয়ার গোলবারে বল মারলে বারিধারার গোল কিপার মোঃ আজাদ হোসেনের হাতে লেগে বল বারের ডান দিকে চলে আসলে সেখানে থাকা কলিনড্রেস সহজে বল পাঠিয়ে দেন বারিধারা ক্লাবের জালে। এরপর খেলায় সমতা ফেরাতে বারিধারা ক্লাব মরিয়া হয়ে খেলতে থাকে। কিন্তু রেফারি জসিমুদ্দীনের শেষ বাঁশি ১-০ গোলের ব্যবধান নিয়ে মাঠ থেকে বিদায় নিতে হয় তাদের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ