ঢাকা, বৃহস্পতিবার 12 August 2020, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

হাইতিতে এতিমখানায় অগ্নিকাণ্ড, ১৫ শিশু নিহত

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: হাইতির একটি এতিমখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কমপক্ষে ১৫ শিশু নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় দগ্ধ হয়েছে আরও অনেকে। 

স্থানীয় প্রশাসন জানায়, রাজধানী পোর্ট আউ প্রিন্সের দক্ষিণে অবস্থিত কেন্সকোফ এলাকায় একটি আবাসিক ভবনে থাকতো বেশ কয়েকজন এতিম শিশু। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

মোমবাতি থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছিল বলে স্থানীয় গণমাধ্যগুলোর প্রতিবেদনে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে। এতিমখানাটির জেনারেটর নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এর কর্মী ও শিশুরা ওই মোমবাতি ব্যবহার করেছিল বলেও জানিয়েছে তারা।যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি গির্জা এই এতিমখানাটি পরিচালনা করছিল বলে জানিয়েছে বিবিসি।

অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত এতিমখানাটির নিবন্ধন ছিল না। হাইতিতে এমন আরও কয়েকশ এতিমখানা আছে বলেও ব্রিটিশ এ সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে।

কর্তৃপক্ষ এখন অগ্নিকাণ্ডের কবল থেকে বেঁচে যাওয়া এতিমখানাটির অন্যান্য শিশুদের সহযোগিতা ও পুনর্বাসনে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন হাইতির সমাজ কল্যাণ বিষয়ক ইনস্টিটিউটের পরিচালক আরিয়েলে জেয়েন্তি ভিলেদ্রু।

“আমরা তাদের অন্তর্বর্তীকালীন একটি কেন্দ্রে নিয়ে যাচ্ছি; তাদেরকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়া যাবে কি না, তা আমরা তাদের পরিবারের অবস্থা বুঝে সিদ্ধান্ত নেবো,” বলেছেন তিনি।

অগ্নিকাণ্ডের সময় পেনসিলভানিয়াভিত্তিক চার্চ অব বাইবেল আন্ডারস্ট্যান্ডিং পরিচালিত অনিবন্ধিত ওই এতিমখানায় ৬০টির মতো শিশু ছিল।

আগুনে ঘটনাস্থলেই ২ শিশুর মৃত্যু হয় বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন; বাকিরা হাসপাতালে মারা যায়।

২০১৩ সালে যাত্রা শুরুর পর থেকেই এটি নিবন্ধিনবিহীন অবস্থায় চলছে বলে স্থানীয় এক বিচারক রেমন্ড জঁ অ্যান্টন অন্য একটি সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন।

“এটির ন্যূনতম মানও ছিল না। সেখানে থাকার পরিবেশ খুব, খুবই অবমাননাকর। আমরা দেখেছি, শিশুরা সেখানে পশুর মতো থাকতো, এমনকী আগুন নেভানোর জন্য ফায়ার এক্সটিঙ্গুইশারও ছিল না সেখানে,” বলেছেন তিনি।

ডিএস/এএইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ