মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪
Online Edition

জুলাইয়ে অনলাইন ব্যাংকিংয়ে লেনদেন বেড়ে ৪৬ হাজার ২৪৩ কোটি টাকা

স্টাফ রিপোর্টার: দেশের অনেকেই এখন বিভিন্ন আর্থিক সেবা পেতে কম্পিউটার ও মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করছে। ফলে এক বছর আগের তুলনায় গত জুলাইয়ে ইন্টারনেট ব্যাংকিং লেনদেন প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে ৪৬ হাজার ২৪৩ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের জুলাইয়ে ইন্টারনেট ব্যাংকিং লেনদেনের পরিমাণ ছিল ২৩ হাজার ৫৪৮ কোটি টাকা। চলতি বছরের জুলাই মাস শেষে যার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৬ হাজার ২৪৩ কোটি টাকা। তবে জুলাইয়ে ইন্টারনেট ব্যাংকিং লেনদেনের পরিমাণ জুনের চেয়ে ২ হাজার ৮৫৫ কোটি টাকা কমেছে। জুনে এই মাধ্যমে লেনদেন হয়েছিল ৪৯ হাজার ৯৯ কোটি টাকা।

ইন্টারনেট ব্যাংকিং সাধারণত অনলাইন ব্যাংকিং নামে অধিক পরিচিত। এর মাধ্যমে গ্রাহকরা আর্থিক লেনদেন ও বিল পেমেন্টসহ নানা ধরনের পরিষেবা সহজেই পান। স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ২ দশক আগে বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যাংকিং চালু করে। তখন থেকেই দ্রুত গতিতে এটি দেশব্যাপী বহুল প্রচলিত হতে শুরু করে।

গ্রাহকরা ইন্টারনেট ব্যাংকিং ব্যবহার করেই আর্থিক লেনদেন করতে ব্যাপক আগ্রহী। এরফলে জুলাই পর্যন্ত এক বছরে গ্রাহক সংখ্যা বেড়েছে ১৯ লাখ ৭০ হাজার। ২০২২ সালের জুলাইয়ে গ্রাহক ছিলো ৫৪ লাখ ৭২ হাজার। চলতি বছরের জুলাইয়ে গ্রাহক সংখ্যা ৭৪ লাখ ৪৩ হাজারে দাঁড়িয়েছে।

ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে লেনদেন বাড়ায় তা ব্যাংকের জন্যও সাশ্রয়ী। অর্থাৎ লেনদেন যদি অনলাইনে হয়, তাহলে ব্যাংক পরিচালনার খরচ অনেকাংশেই কমবে। ব্যাংকগুলোর খরচ কমানোর ও দক্ষতা নিশ্চিত করার এটাই একমাত্র উপায় বলে মনে করছেন অনেক ব্যাংকাররা।

গ্রাহকদের জন্য ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে প্রতিটি লেনদেনের সর্বোচ্চ সীমা ৩ লাখ টাকা। এভাবে দিনে সর্বোচ্চ ১০ বার এবং প্রতিদিন ১০ লাখ টাকা লেনদেন করা যাবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

তবে করপোরেট অ্যাকাউন্টের জন্য প্রতি লেনদেনে সীমা ৫ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ওই অ্যাকাউন্ট থেকে দিনে সর্বোচ্চ ২০ বার এবং প্রতিদিন মোট ২৫ লাখ টাকার লেনদেন করা যাবে।

জুলাইয়ে বাংলাদেশ ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার নেটওয়ার্কের (বিইএফটিএন) মাধ্যমে ফান্ড ট্রান্সফার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০ হাজার ৬১৪ কোটি টাকায়, যা আগের বছরের একই মাসে ছিল ৪০ হাজার ৪৮৬ কোটি টাকা। তবে, জুনেরঅনলাইন ব্যাংকিংয়ের ৫৮ হাজার ৮১৪ কোটি টাকার চেয়ে জুলাইয়ে ফান্ড ট্রান্সফার লেনদেন কম হয়েছে।

২০১১ সালে চালু হওয়া বিইএফটিএন ছিল দেশের প্রথম কাগজবিহীন ইলেক্ট্রনিক আন্তব্যাংকিং ফান্ড ট্রান্সফার সিস্টেম। চেক-ক্লিয়ারিং সিস্টেমের মাধ্যমে এটি ক্রেডিট ও ডেবিট উভয় লেনদেনকে সহজতর করে তোলে। এটি পে-রোল, বিদেশী ও দেশী রেমিট্যান্স, সামাজিক নিরাপত্তার অর্থপ্রদান এবং কোম্পানির লভ্যাংশ লেনদেনের কাজ করতে পারে।

এছাড়াও বিল পেমেন্ট, করপোরেট পেমেন্ট, সরকারি ট্যাক্স পেমেন্ট, সামাজিক নিরাপত্তা প্রদান এবং ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি অর্থ প্রদানের মতো লেনদেন পরিচালনা করতে পারে। অপরদিকে বীমা প্রিমিয়াম, ক্লাব বা সমিতি সাবস্ক্রিপশন ফি ও সমতুল্য মাসিক কিস্তির মতো অর্থ পরিশোধও এর মাধ্যমে করা যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ