মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪
Online Edition

কানাডার শিখ নেতা হত্যায় ভারতের হাত আছে: ট্রুডো

সংগ্রাম ডেস্ক : শিখ নেতা হরদীপ সিং নিজ্জর হত্যায় ভারত সরকারের হাত থাকার অভিযোগ এনেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। রয়টার্স, বিবিসি, এএনআই

গত ১৮ জুন কানাডার ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার একটি শিখমন্দিরের বাইরে হরদীপকে গুলী করে হত্যা করা হয়। গত সোমবার কানাডার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউস অব কমন্সে ট্রুডো বলেন, তার দেশের গোয়েন্দারা হরদীপ হত্যায় ভারত সরকারের সংশ্লিষ্টতার বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ পেয়েছেন। ট্রুডো বলেন, ‘কানাডার মাটিতে একজন কানাডীয় নাগরিককে হত্যার সঙ্গে বিদেশী সরকারের জড়িত থাকার বিষয়টি আমাদের সার্বভৌমত্বের অগ্রহণযোগ্য লঙ্ঘন।’ ট্রুডো বলেন, স্বাধীন, মুক্ত ও গণতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা যেভাবে কাজ করে, এই ঘটনা (হরদীপ হত্যা) সেই মৌলিক নিয়মনীতির পরিপন্থী। ভারত সরকার আগে এই হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে। 

ট্রুডোর মন্তব্যের পর দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেলানিয়া জোলি সাংবাদিকদের বলেন, এ ঘটনার জেরে গতকাল কানাডা এক ভারতীয় কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে। তারা নাম পবন কুমার রাই। যে ভারতীয় কর্মকর্তাকে অটোয়া বহিষ্কার করেছে, তিনি কানাডায় ভারতের বৈদেশিক গোয়েন্দা সংস্থা রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস উইংয়ের (র) প্রধান ছিলেন বলে বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়। ৪৫ বছর বয়সী কানাডীয় শিখ নেতা হরদীপ হত্যাকা-কে ‘পূর্বপরিকল্পিত’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে দেশটির তদন্তকারীরা।

কানাডার উত্তর-পশ্চিমের ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার সুপরিচিত শিখ নেতা ছিলেন হরদীপ। তিনি ভারতের পাঞ্জাবে শিখদের স্বাধীন রাষ্ট্র খালিস্তানের পক্ষে প্রকাশ্যে প্রচার-প্রচারণা চালাতেন। এ কারণে তিনি আগে হত্যার হুমকি পেয়েছিলেন বলে জানান তার সমর্থকেরা। ভারত আগে হরদীপকে ‘সন্ত্রাসী’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছিল। তিনি খালিস্তান আন্দোলনে বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীর নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন বলে অভিযোগ করে ভারত। তবে হরদীপের সমর্থকেরা এই অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে অভিহিত করেন।

পস্পরের কূটনীতিক বহিস্কার ভারত-কানাডার সম্পর্ক তলানিতে:

খালিস্তানী তৎপরতাকে কেন্দ্র করে ভারত-কানাডা সম্পর্কের আরও অবনতি হলো। চলতি বছরের জুনে শিখ নেতা হরদীপ সিং নিজ্জরের হত্যাকা-ে ভারত জড়িত, এমন অভিযোগ এনে সে দেশের এক কূটনীতিককে কানাডা গতকাল সোমবার বহিষ্কার করেছে। পাল্টা ভারতও গতকাল মঙ্গলবার বহিষ্কার করেছে দিল্লীতে নিযুক্ত কানাডার এক কূটনীতিককে। পাল্টাপাল্টি এই ব্যবস্থার ফলে দুই দেশের সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে। কবে ও কীভাবে তা স্বাভাবিক হবে, এখনই বলা কঠিন।

হরদীপ সিং নিজ্জর কানাডায় বসবাসকারী শিখ নেতা। গত জুনে তিনি ভ্যাঙ্কুভারে এক গুরুদ্বারের কাছে আততায়ীর গুলীতে নিহত হন। তিনি ভারতের পাঞ্জাবের জলন্ধর থেকে সে দেশে গিয়েছিলেন ১৯৭৭ সালে। ভারতের অভিযোগ, হরদীপ সিং ছিলেন সশস্ত্র বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন ‘খালিস্তানি টাইগার ফোর্স’ ও ভারতে নিষিদ্ধ ‘শিখস ফর জাস্টিস’-এর কানাডা শাখার নেতা। ভারতের চোখে তিনি অপরাধী ও ‘ফেরার’। তাকে দেশে ফেরত আনতে আগ্রহী ছিল ভারত। হরদীপ সিং বরাবর স্বাধীন শিখ রাষ্ট্র খালিস্তান প্রতিষ্ঠার পক্ষে ছিলেন। ভারতের অভিযোগ, সেই লক্ষ্যে তিনি ভারতে বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসবাদী হামলাও চালিয়েছেন। যদিও হরদীপ সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ভারতের পর কানাডা হচ্ছে দ্বিতীয় দেশ, যেখানে শিখ সম্প্রদায়ের বসবাস সবচেয়ে বেশি। স্বাভাবিক কারণেই সে দেশের রাজনীতিতে শিখ সম্প্রদায়ের প্রভাব যথেষ্ট। এই সম্প্রদায়ের মধ্যে খালিস্তানীদের প্রভাব এবং তা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ও তার দল কঠোর নন বলে ভারত অনেক দিন ধরেই অভিযোগ করে আসছে। এবার পাল্টা অভিযোগ এনে আসর গরম করলেন প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো স্বয়ং।

 কানাডার পার্লামেন্টে ট্রুডো অভিযোগ করেন, হরদীপ সিংকে খুনের পেছনে ভারতের হাত থাকার নির্দিষ্ট প্রমাণ তার সরকারের কাছে রয়েছে। তাদের কাছে সেই প্রমাণ যথেষ্ট বিশ্বাসযোগ্যও। ট্রুডো বলেছেন, দেশের অভ্যন্তরে কানাডার এক নাগরিককে এভাবে হত্যা করা, বিদেশীদের এমন প্রত্যক্ষ যোগসাজশ কানাডার সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করেছে। ওই অভিযোগের পরই কানাডায় অবস্থানরত এক ভারতীয় কূটনীতিককে বহিষ্কারের কথা জানান দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেলানিয়া জোলি। তবে কোন কর্মকর্তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে, কানাডা তা জানায়নি। তবে মেলানিয়া জোলি এটুকু বলেন, যাকে বহিষ্কার করা হয়েছে, তিনি ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিটিক্যাল উইং’-এর (র) প্রধান ছিলেন।

গতকাল সকালেই কানাডার এই পদক্ষেপের কথা জানাজানি হয়। কিছুক্ষণের মধ্যেই ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবৃতি দিয়ে কানাডার সব অভিযোগ অস্বীকার করেছে। বলেছে, কানাডার প্রধানমন্ত্রী সে দেশের পার্লামেন্টে যা বলেছেন, তা ‘অবাস্তব ও উদ্দেশপ্রণোদিত’। শুধু প্রতিবাদই নয়, ভারতে নিযুক্ত কানাডার হাইকমিশনার ক্যামেরুন ম্যাককে তলব করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তাকে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রীর অভিযোগ শুধু অসত্যই নয়, দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ক্ষেত্রেও ক্ষতিকর। সে দেশের এক শীর্ষ কূটনীতিককে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্তের কথাও হাইকমিশনারকে জানিয়ে দেওয়া হয়। পরে ভারতের মন্ত্রণালয় বিবৃতি দিয়ে জানায়, সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে পাঁচ দিনের মধ্যে ভারত ছেড়ে চলে যেতে বলা হয়েছে। ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কানাডার কূটনীতিকের অযথা হস্তক্ষেপ উদ্বেগজনক। তাদের ভারত বিরোধিতা বরদাশত করা যায় না।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ভারত একটি গণতান্ত্রিক দেশ। এই দেশে আইনের শাসন আছে। এই ধরনের অপ্রমাণিত অভিযোগের মূল লক্ষ্য খালিস্তানী চরমপন্থী ও সন্ত্রাসবাদীদের দিক থেকে চোখ ফেরানো। এই জঙ্গিদের কানাডা আশ্রয় দিয়েছে। তারা ভারতের সার্বভৌমত্ব ও অখ-তাকে হুমকির মুখে ফেলেছে। অথচ কানাডা সরকার নিষ্ক্রিয়। বিষয়টি যথেষ্ট উদ্বেগের।

ভারত-কানাডা সম্পর্ক যে মোটেই স্বাভাবিক নয়, তা স্পষ্ট বোঝা গিয়েছিল জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের আসরে। ট্রুডো দিল্লী এসেছিলেন। আসার আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে কাঠামোগত দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু ভারত সেই বৈঠকে রাজি হয়নি। মোদি ও ট্রুডো সম্মেলনের অবসরে সামান্য কিছু সময়ের জন্য কথা বলেছিলেন। সেখানেও খালিস্তানীদের প্রতি নরম মনোভাব দেখানোর অভিযোগে ট্রুডোকে বিদ্ধ করেছিলেন মোদি।

বৈঠকে মোদি বলেছিলেন, কানাডায় ভারতীয় দূতাবাসে একাধিকবার খালিস্তানীরা হামলা চালিয়েছে। এই অভিযোগ তোলার পাশাপাশি বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি বলেছিলেন, তা সত্ত্বেও কানাডার সরকার কারও বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়নি। মোদি ভারতের অসন্তোষ ও অখুশির কথা স্পষ্ট করে জানিয়ে বলেছিলেন, ভারতের আশা, কানাডা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক লড়াইয়ে শামিল হবে।

সেই বৈঠকের পর সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের জবাবে ট্রুডো বলেছিলেন, কানাডায় সবার চেতনা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা এবং শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ দেখানোর অধিকার আছে। যে অধিকারকে কানাডা বিশেষ গুরুত্ব দেয়, তা কখনো খর্ব করা যায় না। তবে সরকার হিংসা ও ঘৃণা বরদাশত করে না। ট্রুডো এ কথা জানাতে ভোলেননি যে হাতে গোনা কয়েকজনের অপকর্মের দায় একটা গোটা সম্প্রদায়ের ওপর চাপানো যায় না। কানাডা-ভারত সম্পর্কের অবনতির রেশ বাণিজ্য আলোচনাতেও পড়েছে। দুই দেশের মধ্যে মুক্ত বাণিজ্য আলোচনা স্থগিত হয়ে গেছে। সম্প্রতি কানাডা বাণিজ্য মিশন পাঠানোর সিদ্ধান্তও সাময়িকভাবে রদ করেছে। আগামী ৯ অক্টোবর ওই বাণিজ্য মিশনের ভারত সফরের কথা ছিল। এবার সরাসরি সে দেশের নাগরিক হত্যার দায় প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো চাপালেন ভারতের ওপর। গুরুতর এই অভিযোগের পর দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কও তলানিতে ঠেকেছে।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ