মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪
Online Edition

গাছে গাছে পাখিদের ‘নিরাপদ নীড়’

খুলনা ব্যুরো : ‘প্রকৃতির জন্য পাখি, গাছে গাছে মাটির হাঁড়ি’ শীর্ষক প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে রেখে গতকাল বুধবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে পাখিদের অবাধ বিচরণ, নিরাপদ আশ্রয়  তৈরি ও তাদের বংশবৃদ্ধির জন্য গাছে গাছে মাটির হাঁড়ি বসানো হয়েছে। বিকালে ফরেস্ট্রি এন্ড উড টেকনোলজি ক্লাবের সদস্যদের হাতে মাটির হাঁড়ি তুলে দিয়ে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন। এ সময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ভিসি বলেন, ‘জীববৈচিত্র্য রক্ষার দায়িত্ব সকলের। জীববৈচিত্র্য ভালো থাকলে আমাদের পরিবেশ ভালো থাকবে, আমরাও ভালো থাকবো। এই হাঁড়িগুলো বসানোর মাধ্যমে দেশীয় পাখিরা নিরাপদ আবাসস্থল পাবে। তা ছাড়া শীতকালে অনেক অতিথি পাখি আসে। পাখিদের কিচিরমিচিরে সবার মন ভরে যায়।’ তিনি আরও বলেন, ‘খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে গ্রিন ক্যাম্পাসে পরিণত করতে বৃক্ষরোপণ করা হয়েছে। এখানে এখন অনেক পাখি আসবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সকলের প্রতি অনুরোধ পাখিরা যেন নিরাপদে থাকতে পারে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় পাখিদের নিরাপদ আশ্রয় হয়ে উঠুক আমরা সে প্রত্যাশা করি।’ দেশীয় পাখি সংরক্ষণ ও নিরাপদ আবাসস্থল তৈরিতে ফরেস্ট্রি এন্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিনের শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত এই ক্লাবের এমন উদ্যোগকে তিনি স্বাগত জানান। একইসঙ্গে এই হাঁড়িগুলো সংরক্ষণে সকলকে মনিটরিং করার আহ্বান জানান। এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মো. শরীফ হাসান লিমন, আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায় কেন্দ্রীয় গবেষণাগারের পরিচালক প্রফেসর ড. ইফতেখার শামস, ভিসির সচিব সঞ্জয় সাহা, এস্টেট শাখা প্রধান উপরেজিস্ট্রার কৃষ্ণপদ দাশ, সংস্থাপন-৩ শাখা প্রধান উপরেজিস্ট্রার মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং ক্লাবের সভাপতি ওয়ালিদ হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বি শাকিলসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও ক্লাবের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, পাখিদের নিরাপদ আশ্রয়, পাখি রক্ষা ও তাদের বংশবৃদ্ধির জন্য খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেস্ট্রি এন্ড উড টেকনোলজি ক্লাবের উদ্যোগে গাছে গাছে শতাধিক হাঁড়ি বসানো হয়েছে। এতে ঝড়, বৃষ্টি, রোদ থেকে পাখিরা বাঁচবে। হাঁড়িগুলোতে ছোট ছোট ছিদ্র করে দেওয়া হয়েছে। এতে বৃষ্টির পানি ঢুকলেও নিচের ছিদ্রগুলো দিয়ে পড়ে যাবে। তা ছাড়া হাঁড়ির দুই দিকে বড় দু’টি মুখ রাখা হয়েছে। এক দিক দিয়ে পাখি ঢুকলে আবার সোজা অন্য মুখ দিয়ে বের হয়ে যেতে পারবে। এতে হাঁড়ির মধ্যে ঢুকতে ও বের হতে পাখির কোনও সমস্যা হবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ