সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪
Online Edition

কিডনি রোগে কলমীর উপকারিতা

 শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের রোগের জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের কাছে ছুটতে হয়। তার পর রয়েছে হাজারো রকমের পরীক্ষা, ওষুধ খাওয়া। কিন্তু আমাদের গ্রাম বাংলায় এমন অনেক শাকসব্জি রয়েছে, যেগুলো দেহের বিভিন্ন রোগ সারিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। শুধু কোন সব্জি কোন কাজে লাগে, তা জানা প্রয়োজন এবং সেই মতো সেই সব শাকসব্জি খেতে হবে। এই অভ্যাস গড়ে তুলতে পারলে দেখবেন, অধিকাংশ রোগ আপনার ধারেকাছে ঘেঁষতে পারছে না। কলমি শাক অতি পরিচিত নাম। যে কোন স্থানেই পাওয়া যায়। আয়ুর্বেদেও এই শাকের উল্লেখ রয়েছে। শরীরের একাধিক উপকার করে এই শাক। চোখের রোগ, শ্বাসকষ্ট, কাশি, পাইলস, মূত্রাশয়ের পাথর, দাদ, চুলকানি, নানান সংক্রামক রোগ, ফোলা ভাব, দুর্বলতা, পেটের সমস্যা ইত্যাদি যাবতীয় রোগ দূর করতে এটি সফল। কলমির শাক শরীরের জন্য অমৃতের মতো বিবেচিত হয়। ভিটামিন এ, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ফাইবার, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টের মতো অনেক পুষ্টি উপাদান এতে পাওয়া যায়। এই উপকারী উপাদানগুলো গুরুতর রোগ প্রতিরোধে কার্যকর। তবে কিডনির স্টোন বা বৃক্কে পাথর হওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই শাকের বিকল্প নেই। এই শাক কিডনির পাথর গলিয়ে বের করে দেবে। শাকের মতো ভেজে তা খেতে পারেন। আবার এই পাতার রস বানিয়েও খেতে পারেন। নিয়ম করে কিছু দিন এই শাক খান, তাতেই মিলবে উপকার। তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ