সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪
Online Edition

রাবি-রুয়েটে শিক্ষকদের কর্মবিরতি অব্যাহত সেশনজটের শঙ্কা

রাবি রিপোর্টার: সার্বজনীন পেনশন স্কিম ‘প্রত্যয়’ বাতিলসহ তিন দফা দাবিতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা সর্বাত্মক কর্মবিরতি অব্যাহত রয়েছে। এরই অংশ হিসেবে সোমবার থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) এবং রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় (রুয়েট)-এ সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এ অচলাবস্থার কারণে সেশনজটের আশঙ্কা করছেন রাবি শিক্ষার্থীরা। তবে অতিরিক্ত ক্লাস নিয়ে তা পুশিয়ে দেয়ার  কথা জানিয়েছেন শিক্ষকরা। 

শিক্ষকরা বলছেন, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সর্বাত্মক কর্মবিরতি ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধের পাশাপাশি হল প্রাধ্যক্ষের অফিস, কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি বন্ধ থাকবে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন অসংখ্য শিক্ষার্থী। এ বিষয়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী শাহ পরান বলেন, শিক্ষকরা যেহেতু ক্লাস-পরীক্ষা পুরোপুরি বন্ধ করে আন্দোলন করছে সেহেতু এই আন্দোলন অবশ্যই শিক্ষার্থীদের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলবে। শিক্ষকদের আন্দোলন যৌক্তিক হলেও কোনো অগ্রসর চিন্তাশীল রাষ্ট্রে এভাবে শিক্ষা-কার্যক্রম বন্ধ রাখা নিঃসন্দেহে অযৌক্তিক। এতে আমাদের মধ্যে সেশনজটের শঙ্কা যেমন বাড়ছে তেমনি আমরা শিক্ষামূলক কার্যক্রম থেকেও ক্রমে দূরে সরে পড়ছি। গণিত বিভাগের শিক্ষার্থী মো. সাব্বির হোসাইন বলেন, করোনার কারণে সব বিভাগেই সেশনজট বেঁধে আছে সেগুলো আরও ত্বরান্বিত হতে পারে। এছাড়া অনেক ডিপার্টমেন্টে পরীক্ষা চলমান তাদের পরীক্ষা বন্ধ হয়ে গেছে। এতে করে শিক্ষার্থীদের হতাশা বাড়ছে। গরমের ছুটি ও ঈদের ছুটি একসাথে হওয়ায় আমরা অনেক ছুটি পেয়েছি এখন আবার ক্লাস পরীক্ষা অফ থাকায় শিক্ষার্থীরা পড়াশোনার ভিতরে আসতে পারছে না। এ বিষয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. হাবিবুর রহমান বলেন, “সেশনজটের মতো কোনো সমস্যা হবে না বলে আশা করছি। আর যদি হয়ও তাহলে আমরা তা অতিরিক্ত ক্লাস নেয়ার মাধ্যমে মেকআপ করার চেষ্টা করবো। ছুটির দিনে আমরা ক্লাস নিয়ে এটা করতে পারি। করোনা পার করে যেমন আমরা সবকিছু গুছিয়ে নিতে পেরেছি এবারও পারবো।” 

কবি আসাদ বিন হাফিজ স্মরণসভা অনুষ্ঠিত : গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ একাডেমি ভবনে কবি আসাদ বিন হাফিজ স্মরণে আলোচনা ও দুআ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে শব্দকলা রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়। শব্দকলাপ্রধান, রাবি প্রফেসর এবং কবি ও গবেষক ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দ’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কথাসাহিত্যিক নাজিব ওয়াদুদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন, প্রফেসর ড. মুহাম্মদ সেতাউর রহমান, প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ইফতিখারুল আলম মাসউদ। কবি আসাদ বিন হাফিজের সাহিত্যকর্ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা পেশ করেন বাংলা লিটারেটার পত্রিকার সম্পাদক কবি সায়ীদ আবুবকর, নতুন একমাত্রার নির্বাহী সম্পাদক কবি ও গবেষক ড. ফজলুল হক তুহিন, আইবিএস পিএইচডি রিসার্চ ফেলো মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক, কবি সালেকুর রহমান স¤্রাট প্রমুখ। 

বক্তাগণ বলেন, কবি আসাদ বিন হাফিজ ছিলেন বাংলা সাহিত্যের অন্যতম কবি, গীতিকার, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, বিশুদ্ধ সাংস্কৃতিক আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা এবং সফল সংগঠন ও প্রকাশক। ইসলামী আদর্শের ভিত্তিতে শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চাকে ছড়িয়ে দেবার ক্ষেত্রে তার অবদান অনন্য। তার সাহিত্যে বাংলার মুসলিম সমাজের পুনর্জাগরণ এবং বিপ্লবের অনুপ্রেরণা প্রকাশ পেয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা সাহিত্যে উচ্চতর ডিগ্রি লাভকারী এই বিদগ্ধ কবির মৃত্যুতে বাংলা সাহিত্যের আদর্শিক ধারায় বিরাট শূন্যতার সৃষ্টি হলো। বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে তাকা লেখাগুলোকে অতিদ্রুত সংরক্ষণ ও সংকলনের উপর বক্তাগণ গুরুত্বারোপ করেন। অনুষ্ঠানে তরুণ কবি ও গবেষকদের কণ্ঠে কবির কাব্যসমগ্র থেকে বেশ কয়েকটি কবিতা পাঠ করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ