সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪
Online Edition

কবিতা

ফুটবল যুদ্ধ 

মুস্তাফা ইসলাহী

 

ঘর হতে শুনি আমি মাঠে বাজি ফুটলো                                                                                        

বাজি শুনে মাঠে যেতে পা, শরীর ছুটলো।                                                                                       

যেয়ে দেখি লোকে ভরা ইশকুল মাঠটা                                                                                             

ফুটবল খেলে নিয়ে চলে কথা, ঠাট্টা ।

 

ফাইনালে কাপ নিবে এই এক লক্ষ্যে-                                                                                      

ঢাকা থেকে খেলোয়াড় এলো দুই পক্ষে।                                                                                     

হারজিত কার হবে লেগে গেলো যুদ্ধ                                                                                       

ধুকধুক কাঁপে বুক যেন শ^াসরুদ্ধ।

 

দুই দল দিতে গোল প্রাণপণ ছুটছে                                                                                              

গোল গোল গোল করো মুখে রব ফুটছে।                                                                                     

একবার গোলবারে লেগে গেলো জটলা                                                                                        

উড়ে এসে জোরে কিক মেরে দিলো পটলা। 

 

বল মাঠে রয়ে গেলো জুতো যেন গুল্লি                                                                                     

ছুটে এসে কেড়ে নিলো কিপারের খুল্লি। 

আজ তাই খেলা শেষ সব লোক রাগছে                                                                                         

ফাইনাল খেলা চেয়ে মাঠ ছেড়ে ভাগছে।

 

মাঠে ঘাটে হৈ চৈ পুরো গ্রাম সুদ্ধ                                                                                           

কাল ফের ফাইনাল ফুটবল যুদ্ধ।  

 

রংতুলি

আসাদুজ্জামান আসাদ

ছবি আঁকি, হাতে তুলি কত ভালোবাসি

পাখি, নদী, ফুল আঁিক, আঁকি রাশি রাশি

তুলি হাতে খাতা নিয়ে আঁকতে যখন বসি

মন্দ হলে ছবির গায়ে রাবার দিয়ে ঘষি।

 

আমার মনের কল্পনাতে রংয়ের তুলি মিশি

হাজার রকম ছবি নিয়ে আঁকি দিবা নিশি।

কাগজ-কলম, খাতা-পিন্সিল যখন যা যে পাই

রংয়ের তুলি হাতে নিয়ে ছবি এঁেক যাই।

 

বৃক্ষ রোপণ

এম. আবু বকর সিদ্দিক 

বৃষ্টিভেজা আষাঢ় এলো

ফুটল কদম ফুল,

বনজ ফলজ গাছ লাগাতে

করো না কেউ ভুল।

 

বিশুদ্ধ অক্সিজেন পেতে

গাছের প্রয়োজন,

বেশি বেশি গাছ লাগাবার

করো আয়োজন।

 

ঘর-দরজা আসবাবপত্র

সবকিছু হয় কাঠে,

গাছের টুকরো মুচকি হাসে

টেবিল চেয়ার খাটে।

 

ঘূর্ণিঝড় আর অনাবৃষ্টি

বাড়ছে নিত্যদিন,

পরিবেশের সুরক্ষাতে

গাছ তুলনাহীন ৷

 

বাবা তুমি

শ্যামল বণিক অঞ্জন

বাবা তুমি আবারো ফিরে যদি আসতে,

যেভাবে ভালোবেসে গ্যাছো, ফের বাসতে!

বটেরই ছায়া হয়ে ঢেকে ঢেকে রাখতে

সারাক্ষণ নাম ধরে থেকে থেকে ডাকতে! 

বাবা তুমি আবারো ফিরে যদি আসতে

এই মুখপানে চেয়ে মিটি মিটি হাসতে!

রোদে পুড়ে মেঘে ভিজে তবু পথ চলতে

মন দিয়ে পড় খোকা, সর্বদা বলতে!

আজ সব স্মৃতি করে বাবা তুমি কই গো!

এ ব্যথার ভার বলো কি করে সই গো?

 

বৃষ্টি ঝরে

সুপদ বিশ্বাস 

টিপ টিপ টিপ বৃষ্টি ঝরে উঠোন ভরা জল,

দলবেঁধে তাই খেলতে নামে খোকাখুকুর দল।

 

ঝির ঝির ঝির বইছে হাওয়া উঠছে মৃদু ঢেউ, 

ধাপুস ধুপুস হাঁটার সাথে ডিগবাজি দেয় কেউ।

 

থই থই থই ভিজছে জলে মনে খুশির গান,

বাবা-মায়ে ডাকছে তবু দেয় না তাতে কান।

 

কা..কা..কা সুরে ডাকে ভেজা দু'টো কাক,

তালমিলিয়ে দিচ্ছে ব্যাঙে ঘ্যাঙর ঘ্যাঙর ডাক।

 

গুড় গুড় গুড় হঠাৎ মেঘের আকাশ আলোময়, 

খোকাখুকুর মনের মাঝে জমতে থাকে ভয়!

 

থম থম থম আকাশ দেখে দেয় তারা সব ছুট,

মনে জমা খুশির পাহাড় এক নিমেষেই লুট!

 

 

আষাঢ়

এম এইচ মুকুল

আষাঢ়ের জলে রোজ ভিজে পথ ঘাট,

নবরূপে দেখি তাই প্রকৃতির ঠাট।

ভিজে বন তরুলতা পশুপাখি আর

ভিজে মন মানুষের, গলপো করার।

 

কলকল জল পড়ে সারা দিনমান,

থেকে থেকে হেঁকে ওঠে ওই আসমান।

খই ফুটে সাদা সাদা ভেজা আঙিনায়,

কদমের ভরা হাসি মেঘ বাগিচায়।

 

চঞ্চলা জলধারা ছুটে বিল পানে,

নূপুরের ঝংকার বেজে ওঠে কানে।

শৈশব স্মৃতিগুলো মনে পড়ে খুব,

জানালাটা খুলে তাই দেখি তার রূপ।

 

বর্ষা এলো 

সাঈদুর রহমান লিটন 

ঝরঝরিয়ে বর্ষা এলো 

সবুজ শ্যামল গায়,

বর্ষা দিনে হাঁটলে পরে

কাদা লাগে পায়। 

 

বর্ষা এলো হাসলো সবাই

খুশি সবার মুখ,

মাঠের ফসল উঠবে জেগে

গর্বে ভরে বুক।

 

বর্ষা জলে দলে দলে

ছেলেমেয়ে নায়,

চোখ রাঙিয়ে ঘরে ডেকে

আদর করে মা’য়।

 

কেবলই ছবি

নাহিদ সরদার

আঁকছে নদী কবি

সেই নদীতে ছবি।

 

ছবির মধ্যে তুই

ইচ্ছে করে ছুঁই।

 

ছুঁতে গেলাম যেই

হারিয়ে গেলি সেই।

 

এখন ঢেউয়ের দল

কাঁদে ছলাৎ ছল।

 

পাখি

নার্গিস আক্তার

পাখি উড়ে ঝাঁকে ঝাঁকে 

দূরে নীল আকাশে,

অজানা অচেনা পথে,

উড়ে যায় আকাশে।

 

আমি চেয়ে চেয়ে দেখি,

খুশিতে ভরে মন

সারাদিন পাখি উড়ে,

হাসে তরুলতা বন।

 

 

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ